অনলাইন নিউজ পোর্টাল নাফভিউ ফেসবুক পেইজে গতকাল সোমবার (১৮জুলাই) শাহপরীরদ্বীপে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কৃষি জমি দখলে নেওয়ার চেষ্টা প্রকাশিত
শীর্ষক সংবাদটি আমাদের দৃষ্টি গোচর হয়েছে। জাল দলিল সৃজনকারী ভূমিূদস্যু মৌলভী নোমান গংদের জমি হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টার অপ্রচারমাত্র। সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা,বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। উক্ত প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

আসল কথা হল গত ১৬/০১/১৯৬৯ ইং সালে ৮৯,৯০ নং দলিল মূলে খরিদসূত্রে রেকর্ডীয় মালিক ফজল আহাম্মদের নামে বিএস জরিপে ৬৮৬ নং খতিয়ান চূড়ান্ত প্রচার আছে। ফজল আহাম্মদ মরণে তৎ ওয়ারীশগণ মালিক হই।
বিগত অপর মামলা নং ৩০/১৯৯৯ইং সালে সহকারী জজ আদালত,টেকনাফ কক্সবাজার এর অধীনে দীর্ঘ আইনি লড়াই শেষে গত ২৪/০৮/২০০৪ ইং সালের আদেশ নং-৪৪ মূলে ফজল আহাম্মদ ডিগ্রী প্রাপ্ত হই।
তাতে বিবাদী পক্ষ মৌলভী নোমান গংরা ক্ষুদ্ধ হয়ে ভূয়া দলিল ধারা ১৭০২নং খতিয়ান সৃজন করে ৯২ শতক জমি রেকর্ড করে নেয়। এ বিষয়টি ফজল আহাম্মদের ওয়ারীশগণ জানতে পেরে রিভিউ মামলা নং-০৬/১৮-১৯ এর মূলে সহকারী কমিশনার (ভূমি) টেকনাফ মহোদয়ের ২২/১১/২০১৮ইং তারিখের আদেশমতে ১৭০২ নং খতিয়ানভূক্ত সমুদয় ভূমি বাতিল করে দেয়। মূল বিএস ৬৮৬ নং খতিয়ান পুনরায় বহাল রাখে।

৬৮৬নং খতিয়ানের ৯২ শতক জমি ভূয়া রেজিষ্ট্রি দলিলের বিরুদ্ধে ফজল আহাম্মদের ওয়ারীশগণ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত টেকনাফ কক্সবাজার এর অধীনে সি আর মামলা নং- ৯৭/২০২০ইং দায়ের করলে মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে মৌলভী সব্বির আহাম্মদ ও তার ছেলে মৌলভী নোমান ও মৌলভী মোহাম্মদ তৈয়ুব তাদের সহযোগী শাহপরীরদ্বীপ করাচি পাড়ার মকবুল আহমদের ছেলে আব্দুস শুক্কুর ও তার ছেলে মোঃ আয়ুব,রশিদ আমিন এবং মোঃ আমিন এর বিরুদ্ধে কক্সবাজার সহকারী জজ আদালতে বিবাদীদের বিরুদ্ধে ১৬০/২২ মামলা দায়ের করলে আদালত তাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারী করেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ফজলুল হক মেম্বার ও শাহপরীরদ্বীপ বড় মাদ্রাসার কয়েকজন আলেমওলামার উপস্থিতিতে বিচার চলমান আছে। এমনকি গত বছরের (২০২১) সালের জমি লাগিয়ত বাবদ মেম্বারের অধীনে বড় মাদ্রাসায় টাকা জমা রয়েছে। এমতাবস্থায় প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে স্থানীয় বিচার-সালিশ অম্যান্য করে ২২৮২/২২ নং কক্সবাজার ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করে প্রকৃত জমি মালিকদের কাছ থেকে জমি হাতিয়ে নেওয়ার পায়তারা করতেছে।

এ সংক্রান্ত বিষয়ে শাহপরীরদ্বীপ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই নুরে আলম এর নিকট ফজল আহাম্মদের ওয়ারীশগণ আদালতের নিষেধাজ্ঞার কপি প্রদান করিলে সাথে সাথে মৌলভী নোমানসহ অপরাপর সকল বিবাদীকে বিরোধীয় জমির নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জমিতে না যাওয়ার জন্য নিষেধ করেন। এতে মৌলভী নোমান গংরা ক্ষুদ্ধ হয়ে বাদীর বিরুদ্ধে সংবাদ কর্মীদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করছে। এ মিথ্যা সংবাদে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

প্রতিবাদকারী,
মৌলভী মোদ্দাচ্ছির ও কামরুল হাসান
পিতা:-মৃত ফজল আহাম্মদ,বাজারপাড়া,৯নং ওয়ার্ড, শাহপরীরদ্বীপ,সাবারাং ইউনিয়ন,টেকনাফ।