অনলাইন ডেস্ক : আগামী মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) থেকে কক্সবাজারের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র সেন্টমার্টিনে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হচ্ছে। প্রথমদিন কেয়ারি ডাইন নামের জাহাজটি প্রায় সাড়ে তিনশত যাত্রী নিয়ে এ দিন যাত্রা করার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছে পর্যটন সংগঠন ‘পদক্ষেপ বাংলাদেশ’ কক্সবাজার জেলা শাখার সভাপতি তোফায়েল আহমেদ।

তিনি জানান, সেন্টমার্টিন দ্বীপের একমাত্র জেটির অবস্থা শোচনীয়। এটি চরম ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠায় মৌসুম শুরুর দেড় মাস হয়ে গেলেও সেন্টমার্টিনে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু করা যায়নি। কিন্তু প্রশাসনের তদারকিতে জেটির সংস্কার কাজ হয়েছে। বর্তমানে এটি ব্যবহারের যোগ্য হওয়ায় আগামী মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) থেকে পরীক্ষামূলকভাবে এ মৌসুমের প্রথম জাহাজ যাত্রা শুরু করবে। এদিন পর্যটকরা নিরাপদ যাতায়াত করতে সক্ষম হলে বাকি জাহাজগুলোও পর্যটক সেবায় চলাচল করবে।

তিনি আরও বলেন, এ বছর সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে চলাচলের অনুমতির জন্য কক্সবাজার জেলা প্রশাসনে আবেদন করেছে কেয়ারি সিন্দাবাদ, কেয়ারি ডাইন, পারিজাত, ফারহান, রাজহংস ও সুকান্ত বাবু নামে ৬ জাহাজ। যথাযথ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে সমস্ত ডকুমেন্টস জেলা প্রশাসনে আবেদনের সঙ্গে জমা দেওয়া হয়েছে। এখন প্রথম জাহাজ ভালো মতো ফেরত এলে বাকিরা হয়তো চলাচলের অনুমতি পেতে পারে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিন আল পারভেজ বলেন, দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন ভ্রমণে আবারও জাহাজ চলাচল শুরু হচ্ছে মঙ্গলবার। আমরা গত ১ নভেম্বর সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য জাহাজে করে সেন্টমার্টিন পরিদর্শনে গিয়েছিলাম। নতুন জেটি নির্মাণ সময় সাপেক্ষ হওয়ায় আগের জেটিটি প্রাথমিকভাবে মেরামত করা হয়েছে।

পর্যটনের দায়িত্বপ্রাপ্ত (এডিএম) অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান বলেন, মঙ্গলবার সকাল থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন পরীক্ষামূলক চলাচল করবে। পর্যায়ক্রমে অবস্থা বুঝে আবেদনকৃত জাহাজকে অনুমতি দেওয়া হবে।

কেয়ারি ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলসের কক্সবাজার অফিসের কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, জেলা প্রশাসকের ছাড়পত্র পেয়েছি, মঙ্গলবার থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচল শুরু করবে। যদিও এর আগে বিআইডব্লিউটিএ ও নৌ-পরিবহন দফতরের ছাড়পত্র পায়। আজ (রবিবার) থেকেই দ্বীপে ভ্রমণকারীদের টিকেট বিক্রি শুরু করেছি, বুকিংও ভালো হয়েছে।

দ্বীপে পর্যটন সেবী ব্যবসায়ীরা তাদের আবাসিক হোটেল ও কটেজগুলো সাজিয়ে রাখছেন। জাহাজ চলাচলের খবরে দ্বীপে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে। তবে পর্যটন মৌসুমের অনেকটা সময় চলে গেছে বলে জানিয়েছেন সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও হোটেল মালিক মুজিবুর রহমান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •