সিবিএন ডেস্ক:
বাজারে দুই রঙের ডিম পাওয়া যায়। একটা সাদা রঙের। অন্যটা বাদামি রঙের। সাদা রঙের ডিমের চেয়ে বাদামি রঙের ডিমের দাম বেশি। সাধারণত হোটেল, রেস্তোরাঁয় খরচ কমানোর জন্য ক্রেতাদের সাদা রঙের ডিম পরিবেশন করা হয়।

অনেকেই মনে করেন সাদা রঙের ডিমের চেয়ে বাদামি রঙের ডিমে পুষ্টিগুণ বেশি। কিন্তু সে কথা কি আদৌ ঠিক? আদৌ কি এই বাদামি বা লালচে ডিম খেলে লাভ বেশি?

সম্প্রতি কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েক জন গবেষক ডিমের খোলার রঙ নিয়ে গবেষণা করেছেন। খোলার রঙ পাল্টালে কি ডিমের পুষ্টিগুণ পাল্টে যায় কি না, সেটি বোঝার চেষ্টা করেছেন।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, বাদামি বা লালচে রঙের ডিমে ওমেগা-থ্রি কিছুটা বেশি থাকে। কিন্তু সেই বাড়তি ওমেগা-থ্রি-র পরিমাণ অত্যন্ত নগন্য। ফলে তার জন্য আলাদা করে বাদামি ডিম খাওয়ার কোনও অর্থ হয় না। কিন্তু পুষ্টিগুণ? কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাপত্রটি বলছে, দুই ধরনের ডিমেই পুষ্টিগুণের মাত্রা সমান।

সে ক্ষেত্রে প্রশ্ন উঠতে পারে এই দুই ধরনের ডিমের রং আলাদা কেন? তারও উত্তর দেওয়া হয়েছে এই গবেষণাপত্রে। বলা হয়েছে, এটা পুরোপুরি নির্ভর করে মুরগির জিনের উপর।

এই দুই ধরনের ডিমের স্বাদও কি আলাদা হতে পারে? সে বিষয়ে বলা হয়েছে, যে কোনও দুইটির ডিমের স্বাদই আলাদা হতে পারে। তার সঙ্গে খোলার রঙের সম্পর্ক নেই। বরং মুরগি কী খাচ্ছে, তার উপর নির্ভর করে ডিমের স্বাদ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •