সিবিএন ডেস্ক:
আফগানিস্তান পরিস্থিতি প্রতিনিয়ত পরিবর্তন হচ্ছে। এরইমধ্যে অন্তর্বর্তীকালীন তালেবান সরকার গঠিত হয়েছে। চিন আফগানিস্তানের সঙ্গে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মিরকে সড়কপথে যুক্ত করতে বিনিয়োগ করছে। অন্যদিকে তালেবান প্রথমে কাশ্মির ইস্যুতে হস্তক্ষেপ না করার কথা বললেও পরে অবস্থান বদল করে দলটি। ফলে স্বভাবতই ভারত অধিকৃত কাশ্মির নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে দিল্লির। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অঞ্চলটির নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে বৃহস্পতিবার উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে মিলিত হন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

এদিন সেনাপ্রধান এম এম নারভানে, কাশ্মিরের লেফটেন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল এবং গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর সচিব সামন্ত গোয়েলের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেন অমিত শাহ। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী এবং সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স (সিআরপিএফ)-এর পক্ষ থেকেও একজন করে প্রতিনিধি এতে উপস্থিত ছিলেন। এ সময় কাশ্মিরের বিদ্যমান পরিস্থিতি নিয়ে দীর্ঘ পর্যালোচনা করা হয়।

সূত্রের খবর, আফগানিস্তান পরিস্থিতির প্রভাব পড়ছে কাশ্মিরে। কট্টরপন্থীরা আবার সক্রিয় হয়ে উঠছে। আর এতেই চিন্তার ভাঁজ পড়েছে বাহিনীর। বিশেষ করে সোপুর, সোপিয়ান ও শ্রীনগর সংলগ্ন কিছু এলাকাসহ দক্ষিণ কাশ্মিরের কিছু অংশ নিয়ে দুশ্চিন্তা করছে মোদি সরকার।

কাশ্মিরের পুলিশ সূত্র বলছে, আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি উপত্যকার কট্টরপন্থীদের জন্য অনুঘটকের মতো কাজ করছে। পুরো বিষয়টির ওপর সজাগ দৃষ্টি রাখা হচ্ছে। আর এই পরিস্থিতির সুযোগ নিতে চাইছে পাকিস্তানও। সামগ্রিক পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবারের এই বৈঠক যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। সূত্র: টিভি৯।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •