সিবিএন ডেস্ক:
আফগানিস্তানের জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন দেশটির পলাতক প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি।

তিনি বলেছেন, “তালেবানের হাতে কাবুল দখল হয়ে যাওয়ার সময় সবকিছু যেভাবে ঘটেছে সেজন্য আমি জনগণের কাছে ক্ষমা চাচ্ছি।”

দৃশ্যত নিজের দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার জন্যই আশরাফ গনি দেশটির জনগণের কাছে এই ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।

তিনি প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালনের সময় নিজের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে স্বচ্ছ হিসেবে তুলে ধরে বলেন, দেশ থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় তিনি বিপুল অংকের অর্থ সঙ্গে করে নিয়ে গেছেন বলে যে খবর প্রচার করা হয়েছে সে ব্যাপারে তিনি তদন্তের মুখোমুখি হতে রাজি আছেন।

গত ১৫ আগস্ট তালেবান কাবুলে প্রবেশ করার আগ মুহূর্তে আশরাফ গনি হঠাৎ করে দেশ ছেলে পালিয়ে যান। তিনি বুধবার টুইটারে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে সঙ্গে করে কোটি কোটি ডলার নগদ অর্থ নিয়ে যাওয়ার অভিযোগকে ‘ভিত্তিহীন’ বলে প্রত্যাখ্যান করেন।

গনির দেশত্যাগের দিন থেকেই আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এ খবর প্রচারিত হতে থাকে যে, চারটি গাড়ি ও একটি হেলিকপ্টারে করে তিনি নগদ ১৬ কোটি ডলার অর্থ আফগানিস্তান থেকে নিয়ে গেছেন। আশরাফ গনি বলেন, তিনি এ ব্যাপারে যেকোনও আন্তর্জাতিক নিরপেক্ষ সংস্থা বা জাতিসংঘের মাধ্যমে তদন্তের মুখোমুখি হতে প্রস্তুত রয়েছেন।

সাবেক আফগান প্রেসিডেন্ট আবারো দাবি করেন, নিরাপত্তা বাহিনীর কর্মকর্তাদের অনুরোধে তিনি দেশত্যাগ করেছেন এবং তিনি কাবুলে অবস্থান করলে ১৯৯০’র দশকের মতো আফগানিস্তানে গৃহযুদ্ধ বেধে যেত।

গনি কাবুল ত্যাগ করার পর তিনদিন পর্যন্ত তার কোনও হদিস পাওয়া যাচ্ছিল না। তিনদিন পর খবর প্রকাশিত হয় যে, তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতে আশ্রয় নিয়েছেন। এরপর এক ভিডিও বার্তায় গনি দাবি করেন, দেশ ছেড়ে পালানোর সময় তিনি নিজের পোশাক, জুতা ও পাগড়ি ছাড়া আর কিছু সঙ্গে করে নিয়ে যেতে পারেননি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •