মোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

সাতকানিয়ায় স্ত্রী’র পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় স্ত্রী কর্তৃক নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন আবুল হোসেন ওরফে আবু ভান্ডারী (৪৫) নামের এক ব্যক্তি। স্ত্রী দ্বারা স্বামী বেধম প্রহারের ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে সাতকানিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই স্ত্রী ও তার ছেলেকে আটক করে। বর্তমানে মা ও ছেলে দু’জনই থানা হেফাজতে আছেন।
গত সোমবার দিবাগত রাত ২টার সময় উপজেলার কালিয়াইশ ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড ম্যাইঙ্গা পাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে ।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, আবু ভান্ডারীর স্ত্রী শাহিনা আকতারের সাথে দীর্ঘদিন ধরে ধর্মপুর ইউনিয়নের আলমগীর চৌধুরী বাড়ির মৃত ছাবের আহমদের ছেলে আবদুল কাদের ওরফে ডাকাত কাদেরগ্যার পরকীয়ার সম্পর্ক চলে আসছিল। গত কয়েকদিন আগে ডাকাত কাদেরগ্যা এবং শাহিন আকতারকে গোয়াল ঘরে আপত্তিকর অবস্থায় স্বামী আবু ভান্ডারী দেখে ফেলেন। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় গণ্যমান্যদের বিচার দিলে কালিয়াইশ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক মাষ্টার মহি উদ্দিন ও শাহিন আকতারের চাচাত ভাই নুরুল কবির বাবুসহ আরো কয়েকজন মিলে আপোষ মীমাংসা করে দেন। এ সময় উপস্থিত সালিশী মীমাংসাকারীরা ডাকাত কাদেরগ্যা’র কাছ থেকে আবু ভান্ডারীর বাড়িতে আর কখনো আসবে না মর্মে মোছলেকা নেন । সালিশী মীমাংসার কয়েকদিন পর গত সোমবার রাতে পুনরায় ডাকাত কাদেরগ্যা শাহিনের ঘরে আসলে স্বামী আবুল হোসেন ওরফে আবু ভান্ডারী প্রতিবাদ করেন। এ সময় আবু ভান্ডারী পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় ডাকাত কাদেরের উপস্থিতিতে স্ত্রী শাহিন আকতার ও মায়ের পক্ষ নিয়ে ছেলে খাইরুল এনাম আবু ভান্ডারীকে দড়ি দিয়ে বেঁধে বেধড়ক মারধর করে হত্যা চেষ্টা চালান। আজ এ ঘটনার ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হলে সাতকানিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নির্যাতিত আবুল হোসেন ওরফে আবু ভান্ডারীকে উদ্ধার করে স্ত্রী শাহিন আকতার ও ছেলে খাইরুল এনামকে আটক করে থানা নিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা আবু ভান্ডারীকে দোহাজারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা দেন।
সাতকানিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন বলেন, এক বৃদ্ধকে নির্যাতনের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল আমাদের নজরে আসলে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বৃদ্ধকে উদ্ধার করে স্ত্রী এবং ছেলেকে পুলিশ হেফাজতে আনা হয়েছে। নির্যাতিত বৃদ্ধ অভিযোগ দায়ের করলে ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •