বিদেশ ডেস্ক: অনলাইন ক্লাসের জন্য স্মার্টফোন কিনে দিয়েছিল পরিবার। কিন্তু সেই ফোন ব্যবহার করে ১৫ বছরের স্কুল পড়ুয়া মেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নগ্ন ছবি পোস্ট করে। মেয়ের সেই কীর্তির কথা জানতে পেরে হার্টঅ্যাটাক হয় মা-বাবার।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের গুজরাটের আহমেদাবাদ শহরে।

পরিবারের বরাতে আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, মেয়ের পড়াশোনার জন্য স্মার্টফোন কিনে দিয়েছিলেন বাবা-মা। আলাদা ঘরও দেওয়া হয়েছিল, যাতে পড়াশোনায় অসুবিধা না হয়।

কিন্তু একা থাকার সুযোগেই বখে যায় কিশোরী মেয়েটি। সোশ্যাল মিডিয়ায় অশ্লীল ছবি পোস্ট করা শুরু করে সে। পাশাপাশি চাচাতো বোনেদের এই নিয়ে উৎসাহিত করতেও শুরু করেছিল সে।

এই ছবি দেখেই আত্মীয়রা ওই কিশোরীর বাড়ির লোকজনের কাছে অভিযোগ করেন। সেই কথা শুনেই হার্ট অ্যাটাক হয় মা-বাবার। তারা প্রাথমিক অসুস্থতা সামলে উঠে মেয়েকে বোঝানোর চেষ্টা করতে শুরু করেন। তার পরেও তেমন কোনও লাভ হয়নি বলেই জানিয়েছেন তারা। এরপরে ১৮১ চাইল্ড লাইনে ফোন করেন অভিভাবকরা। সেই ফোনের পরেই মনোবিদরা কথা বলতে শুরু করেন ওই কিশোরীর সঙ্গে।
তারা বুঝিয়ে বলেন, এই ধরনের ছবি পোস্ট করে আসলে সাইবার অপরাধ করে ফেলেছে সে। শেষ পর্যন্ত ওই কিশোরী কথা দেয়, এরপর থেকে অভিভাবকদের সামনেই স্মার্টফোন ব্যবহার করবে সে। এ ছাড়া এত দিন যে সব ছবি সে পোস্ট করেছে, সেগুলিও সরিয়ে নেবে নেটমাধ্যম থেকে।
সূত্র: আনন্দবাজার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •