চকরিয়া প্রতিনিধি :
চকরিয়ায় মার্কেটের গলির ভেতরে মন্তী রাণী শীল (৭০) নামের এক সংখ্যালঘু বয়স্ক নারীর সর্বস্ব লুটে নিয়েছে
ছিনতাইকারীরা। এসময় তার কাছ থেকে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ সর্বস্ব ছিনিয়ে নিয়ে চম্পট দেয়।
রবিবার (২৯ আগষ্ট) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে চকরিয়া পৌর শহরের চিরিংগা সমবায় মার্কেটের গলির ভেতরে প্রকাশ্যে দিবালোকে এ ঘটনা ঘটে।
ছিনতায়ের শিকার মন্তী রাণী শীল পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের মিয়া পাড়ার আরাধন সুশীলের স্ত্রী।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মন্তী রাণী শীল
ও তার পুত্র বধু রূপালী সুশীল রবিবার দুপুর সাড় ১২ টার দিকে কক্সবাজার থেকে হানিফ পরিবহনের একটি বাসে করে চকরিয়া পৌর শহরের চিরিংগা বাণিজ্যিক কেন্দ্র সমবায় সমিতি মার্কেটের সামনে নেমে যায়। গাড়ি থেকে নেমে তারা কেনাকাটা করার উদ্দেশ্যে সমবায় সমিতি মার্কেটের আজাদ লাইব্রেরির সামনে পৌঁছে। এ সময় দুইজন অজ্ঞাত নামা ছিনতাইকারী মন্তী রাণী শীলের হাত চেপে ধরে আজাদ লাইব্রেরির সামনের দ্বিতলায় উঠার সিঁড়িতে নিয়ে যায়। ওই সময় ছিনতাইকারী বৃদ্ধ নারীকে মারধর করে
তার কাছ থেকে ১ ভরি ৪ আনা ওজনের একটি বালা, ৮ আনা ওজনের একটি কানের দুল ও নগদ ২ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে চম্পট দেয়। এসময় ছিনতাইকারী হাত থেকে রক্ষার্থে সাহায্যের জন্য চিৎকার করলেও আশপাশের কোন লোকজন এগিয়ে না আসায় ছিনতাইকারীকে ধরা সম্ভব হয়নি। ঘটনার পরে ভুক্তভোগী মন্তী রাণী শীল এ ব্যাপারে চকরিয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ উঠেছে, চকরিয়া পৌর শহরের বাণিজ্যিক কেন্দ্রে বিভিন্ন এলাকা থেকে নারী-পুরুষেরা কেনাকাটা করতে আসা এরকম বহু ছিনতাইয়ের ও প্রতারণার শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সদস্যদের খামখেয়ালি ও তাদের দায়িত্ব অবহেলার কারণে পৌর শহরের কোন না কোন স্থানে অহরহ এ ধরণের ঘটনা নিত্যদিন ঘটে যাচ্ছে বলে বেশ কিছু ব্যবসায়ী জানান।

মন্তী রাণী শীলের নাতি জয় জানান, ঘটনার পরে বিকেল ৩ টার দিকে ছিনতাইয়ের বিষয়ে থানায় একটি এজাহার জমা দিয়েছন। সন্ধ্যার পরও তারা পুলিশের কোন ধরণের সহযোগিতা পায়নি বলে দাবী করেছেন।

তিনি আরও বলেন, থানায় দায়িত্বরত ডিউটি অফিসার তাদেরকে দুই-তিন দিন পর এসে যোগাযোগ করার জন্য বলেছেন বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক (এস আই) কামাল হোসেন বলেন, দেখি টহল পুলিশ থানায় আসলে তাদেরকে ঘটনাস্থলে পাঠানো যায় কিনা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •