শাহেদুল ইসলাম মনির, কুতুবদিয়া:

মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন, তাই উন্নয়নের নানা ক্ষেত্রেও পিছিয়ে ছিল কুতুবদিয়া। জাতীয় উৎপাদন বাড়লেও এখনো বিদ্যুৎ সুবিধা থেকে বঞ্চিত এই দ্বীপের মানুষ।

এখানে মাত্র একটি জেনারেটর দিয়ে ৭ শ গ্রাহককে বিদ্যুৎ দেয়া হয়। তাও বেশিরভাগ মানুষের ভাগ্যে জোটে না।

এমন অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ যাচ্ছে কুতুবদিয়ায়। আগামী বছর জাতীয় গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ পাবে কুতুবদিয়াবাসী। নদীর পানির তলদেশ দিয়ে সাইবার অপটিক ক্যাবলের মাধ্যমে ৮০ কোটি টাকার এই প্রকল্পের কাজ দৃশ্যমান হতে শুরু করেছে।

কুতুবদিয়া পারাপার ঘাট মগনামা জেটির ৫’শ মিটার উত্তরে সাগরের তলদেশ থেকে ৫ মিটার গভীর দিয়ে বৈদ্যুতিক লাইনের ক্যাবল যাবে কুতুবদিয়া দ্বীপে। এখন প্রায় সকল কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে সাব স্টেশন নির্মাণের জন্য ইতোমধ্যে দরবার ঘাট সংলগ্ন নির্ধারিত স্থানে ক্রেনসহ অন্যান্য নির্মাণ সরঞ্জাম আসতে শুরু করেছে। ২০২২ সালের মধ্যে জাতীয় গ্রিড থেকে কুতুবদিয়ায় বিদ্যুৎ যাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী কর্তৃপক্ষ। তারা বলছেন, বিদ্যুতের সংযোগের মাধ্যমে বদলে যাবে দ্বীপটির অর্থ-সামাজিক অবস্থা।

এই বিষয়ে সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক বলেন, ইতোমধ্যে সাবমেরিন প্রকল্পের পরিচালক নিয়োগ এবং প্রশাসনিক কাজও সম্পন্ন হয়েছে। করোনা মহামারি কারণে প্রকল্পটি পিছিয়ে গেছে অনেক টা।

উল্লেখ, (২০০৬-৭) অর্থ বছরে ১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্রতিষ্ঠান ফ্যান এশিয়া পাওয়ার সার্ভিস লিমিটেড মাধ্যমে বায়ু বিদ্যুৎ কেন্দ্র কাজ শুরু করে। আবার ২০১৬ সালে ২৩ কোটি ৭৭ লক্ষ টাকা ব্যায়ে ২০টি টারবাইন দিয়ে বায়ু বিদ্যুৎ কেন্দ্র নতুন করে নিমাণ করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •