এম বশির উল্লাহ, সোনাদিয়া ঘুরে এসে:
দেশের একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ মহেশখালীর উপদ্বীপ খ্যাত সোনাদিয়া দ্বীপে হচ্ছে আন্তর্জাতিক মানের ইকো ট্র্যরিজম র্পাক। দেশি-বিদেশি পর্যটক আর্কষণ করতে বাংলাদেশ ইকোনোমিক জোন কর্তৃপক্ষ (বেজা) এসব মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়নে কাজ করবে।

কয়েক ধাপে ৯ বছরে ৮ হাজার ৯৬৭ একর জমিতে সোনাদিয়া ইকো ট্যুরিজম পার্ক তৈরি করা হবে। প্রথম ধাপের কাজ শেষ দুই বছরে। ইতিমধ্যে সোনাদিয়া দ্বীপে নতুন করে ঝাউগাছের চারা রোপন করা হয়েছে।

শুক্রবার ঝটিকা সফরে এই দ্বীপের পর্যটনের সম্ভাবনার দ্বীপটি ঘুরে দেখেন বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মোঃ মাহবুব আলী বলেন, বর্তমান সরকার মহেশখালীর সোনাদিয়ায় ইক্যুটুরিজম স্পট হিসেবে গড়ে তুলতে ব্যাপক পরিকল্পনা নিয়েছেন। এছাড়াও মহেশখালীর ঐতিহাসিক আদিনাথ মন্দিরে পর্যটকদের আরো আকৃষ্ট করে তুলতে উদ্যোগ নেওয়া হবে।

তিনি শুক্রবার (২৭ আগস্ট) দুপুরে মহেশখালীর সোনাদিয়া ও আদিনাথ মন্দির এলাকা পরিদর্শন করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ, মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাহফুজুর রহমান, থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবদুল হাই, কুতুবজোম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন খোকন, যুবলীগ নেতা শেখ কামাল।

মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মোঃ মাহাবুব আলীকে মহেশখালীতে পৗঁছলে সাংসদ আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিক স্বাগত জানান।

পাশাপাশি মহেশখালীর সোনাদিয়া ও আদিনাথ মন্দির সহ সার্বিক বিষয় নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন।