আবুল বশর পারভেজ, মহেশখালী:
স্বাস্থ্যসেবা খাতকে সর্বস্থরে পৌঁছিয়ে সমৃদ্ধ ও উন্নত করতে নার্সিং ইনস্টিটিউট চায় দ্বীপ উপজলো মহেশখালীর বাসিন্দারা। এ দাবিতে ১৮ আগষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি প্রদান করেছে “মহেশখালী স্টুডেন্ট নার্সেস ওয়েলফেয়ার সোসাইটি” নামক একটি সামাজিক সংগঠন। তার আগে মানববন্ধ ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সেখানে বক্তব্য দেন- উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মাহফুজুল হক, আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার শিব শেখর ভট্ট্যাচার্য্য, নার্সিং এসোসিয়েশনের যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান জুয়েল, মহেশখালী প্রেসক্লাব সভাপতি আবুল বশর পারভেজ, হাসপাতালের কর্মকর্তা মাহবুব আলম, ইপিআই কর্মকর্তা নুরুল আলম হেলালী, নার্সি কর্মকর্তা ফরিদা খাতুন, মহেশখালী স্টুডেন্ট নার্সেস ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সভাপতি কামরুল হাসান ছোটন, সাধারণ সম্পাদক মিতালী প্রভা দে।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ আছে, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী স্বাধীনতার মহান স্থপতি বিশ্বনন্দিত রাষ্ট্রনায়ক বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নার্সদের অনেক ভালবাসতেন, নার্সদের উন্নয়নে ভাবতেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট বিশ্বাসঘাতকদের ন্যাক্কারজনক হত্যাকান্ডে বাঙ্গালী জাতির উন্নয়নের স্বপ্ন ভেঙ্গে যাওয়ার পাশাপাশি ব্যাহত হয় নার্সিং পেশার উন্নয়ন ভাবনা।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা আপনি যখনই দেশের রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছেন তখনই জাতির পিতার মতই নার্সিং পেশার উন্নয়নে ভেবেছেন, কাজ করেছেন। পেশাগত ও সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধিসহ এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ সংখ্যক প্রায় ৩০,০০০ নার্স এবং মিডওয়াইফ নিয়োগ, পেশার সার্ভিস, শিক্ষা, প্রশাসন এবং আবকাঠামোগত যত উন্নয়নই হয়েছে সবই আপনার প্রত্যক্ষ হস্তক্ষেপে বাস্তবায়ন হয়েছে। নার্স সঙ্কট নিরসনে সারাদেশে বিপুল সংখ্যক নার্সিং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা আপনারই একান্ত নির্দেশনায়। নার্সিং পেশার কনিষ্ট সদস্য হিসাবে আমরা আপনার প্রতি জানাচ্ছি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন।

বাংলাদেশর সর্ববৃহৎ পর্যটন নগরী কক্সবাজার জেলার অন্তর্গত মূল ভুখন্ড হতে প্রায় বিচ্ছিন্ন মহেশখালী উপজেলা বরাবরই অবহেলিত জনপদ হলেও আপনার বলিষ্ট নের্তৃত্ব এবং এ এলাকার জনগণের প্রতি আপনার নিবীড় ভালবাসায় রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, তথ্যপ্রযুক্তির ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে এবং হচ্ছে। সম্প্রতি আপনার উদ্যোগে এই মহেশখালীতে দেশের বৃহত্তম তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র, বৃহত্তম তৈল ডিপো ও শোধানাগার ও সর্ববৃহৎ গভীর সমুদ্র বন্দর প্রতিষ্ঠার কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। আপনারই সু-দৃষ্টির কারনে এই উপজেলাতেই প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে দেশের বৃহত্তম অর্থনৈতিক জোন এবং বৃহত্তম শিল্প ও বানিজ্যিক নগরী। এই অবহেলিত জনপদে এতসব মেগাপ্রকল্প গ্রহন করায় এলাকার জনগণ নতুনভাবে নতুনদিনের স্বপ্ন দেখছে। আমরা এই অবহেলিত জনপদটিকে এমন অকল্পনীয় দ্রুততার সাথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার গৃহীত সকল পদক্ষেপের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে। নারী শিক্ষার উন্নয়নের লক্ষ্যে আপনার এবং আপনার সরকারের নানাবিধ পদক্ষেপে মহেশখালী উপজেলায় নারী শিক্ষায় ব্যাপক উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। কিন্তু দেশের মূল ভূখন্ড, সংস্কৃতি ও সামাজিকতা থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ায় এ উপজেলায় শিক্ষিত নারীদের বিভিন্ন পেশায় আতœনিয়োগের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হতে বা করতে রয়েছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সামাজিক অজ্ঞতা ও নানাবিধ প্রতিবন্ধকতা। যোগ্যতা থাকা সত্তে¡ও বিদ্যমান পেশাগুলোতে এ অঞ্চলের নারীদের অংশগ্রহন অত্যন্ত নগন্য। বিশেষ করে আপনার প্রত্যক্ষ হস্তক্ষেপে দ্রুত অগ্রসরমান নার্সিং ও মিডওয়াইফারি পেশায় এ উপজেলা এবং পার্শ্ববর্তি উপজেলার শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহন অত্যন্ত নাজুক। আপনার অবদানে সামাজিক মর্যাদাশীল নার্সিং পেশায় ৯০ ভাগ নারী শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহনের সুযোগ থাকলেও শুধুমাত্র শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সামাজিক অজ্ঞতা ও নানাবিধ প্রতিবন্ধকতার কারনে এ অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা মারাত্বকভাবে পিছিয়ে রয়েছে। তাই মহেশখালী, সোনাদিয়া, কুতুবদিয়াসহ আশপাশের উপজেলার জনসাধারণ, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের নার্সিং এবং মিডওয়াইফারি পেশায় আত্বনিয়োগে উৎসাহীত করতে মহেশখালীতে একটি নার্সিং ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা একান্ত জরুরী।

নার্সিং ও মিডওয়াইফারি পেশায় আপনার উন্নয়নের মর্যাদা ও সুবিধা আজীবন নার্স ও মিডওয়াইফরা উপভোগ করবে এবং আপনাকে কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরন করবে, তেমনি আপনার গৃহীত ব্যাপক উন্নয়ন বাস্তবায়ন হলে মহেশখালীর অবহেলিত জনগণও যুগে যুগে আপনাকে অবনত মস্তকে স্মরন করবে। আপনার হস্তক্ষেপে দ্রুত গতিয়ে এগিয়ে চলা এ জনপদের জনগণ, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের আপনার প্রত্যক্ষ অবদানে দ্রুত অগ্রসরমান নার্সিং পেশায় আত্মনিয়োগে সরাসরি উৎসাহীত করতে মহেশখালী উপজেলায় সরাকারি পর্যায়ে “শেখ হাসিনা নার্সিং ইনস্টিটিউট” প্রতিষ্ঠা করার জোর দাবী জানাচ্ছি। এই “শেখ হাসিনা নার্সিং ইনস্টিটিউট” প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে যেমন নার্সিং পেশায় এ অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের আত্মনিয়োগ সহজলভ্য হবে, সমৃদ্ধ হবে শিক্ষিত নারীদের আত্মনির্ভশীলতা, সমৃদ্ধ হবে নার্সিং পেশা এবং নিশ্চিত হবে এ অঞ্চলের স্বাস্থ্যসেবা।

উল্লেখ্য যে, “শেখ হাসিনা নার্সিং ইনস্টিটিউট” প্রতিষ্ঠার জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের নিজস্ব পর্যাপ্ত পতিত ভুমি রয়েছে। উপরোক্ত বিষয়গুলো সদয় সহানুভূতির সাথে বিবেচনা করে মহেশখালীতে “শেখ হাসিনা নার্সিং ইনস্টিটিউট” প্রতিষ্ঠা করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আবেদন জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •