বার্তা পরিবেশক:

কক্সবাজার শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৪৬তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস’ ২০২১ পালন করা হয়েছে। শোকের মাসে সমাজসেবা অধিদফতর এর নির্দেশনা অনুসারে গৃহীত কর্মসূচি যথাযথভাবে পালন করা হয়েছে। উক্ত কর্মসূচির অংশ হিসেবে কেন্দ্রের বালক ও বালিকা উভয় শাখায় মাসব্যাপী কোরআন খতম ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এছাড়াও পুষ্পস্তবক অর্পণ, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, পুরস্কার বিতরণ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গতকাল সকাল দশটায় ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও নিবাসী শিশুদের নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং জাতির পিতার কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেল এঁর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন কেন্দ্রের উপপ্রকল্প পরিচালক জেসমিন আকতার। অতঃপর সকাল সাড়ে দশটায় নিবাসী শিশুদের অংশগ্রহণে জাতির পিতা ও তাঁর শহীদ পরিবারবর্গের রূহের শান্তি কামনায় কোরআনখানি সম্পন্ন হয়। দুপুর বারটায় বালক শাখার কেন্দ্র মিলনায়তনে কক্সবাজার জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (মানবসম্পদ ও উন্নয়ন) মো: নাসিম আহমেদ এর সভাপতিত্বে এবং ্উপপ্রকল্প পরিচালক জেসমিন আকতার এর সঞ্চালনায় আয়োজিত আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার জেলার জেলা প্রশাসক মো: মামুনুর রশীদ। উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) নু এ মং মারমা মং, কক্সবাজার জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো: আবুল কাসেম এবং সবুজবাগ জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মোঃ ইকবাল হোসাইন। কেন্দ্রের নিবাসী শিশু মোঃ মিকাত হাসান এর স্বাগত বক্তব্যের মধ্যেদিয়ে শুরু হয় শোক দিবসের মাহাত্ম্য নির্ভর আলোচনা সভা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ও অন্যান্য অতিথিবৃন্দ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৪৬তম শাহাদাৎ বার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবসে নিবাসীদের সামনে তাৎপর্যপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করেন। প্রধান অতিথি শিশুদের উদ্দেশ্যে বলেন- “বঙ্গবন্ধুর চেনতায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশকে অর্থনৈতিকভাবে অগ্রগতি সাধনের মাধ্যমে তোমাদের মতো সোনার শিশুরাই একদিন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলবে।” আলোচনা শেষে প্রধান অতিথি প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। অতঃপর কেন্দ্রের নিবাসী শিশুরা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা কবিতা আবৃত্তি ও গান পরিবেশন করে। শিশুদের শোকাবহ কন্ঠে ধ্বনিত হয়- “যদি রাত পোহালে শোনা যেতো বঙ্গবন্ধু মরে নাই…”। এছাড়াও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে নিবাসী শিশুদের মাঝে মিলাদের তবারক ও বিশেষ উন্নতমানের মধ্যাহ্ন ভোজ পরিবেশন করা হয়…।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •