প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

আশেক উল্লাহ রফিক এমপি বলেছেন, ১৫ আগষ্ট বাঙ্গালী জাতির জন্য বেদনার দিন। এই দিনেই জাতির জনক’কে স্বপরিবারে হত্যার মধ্যদিয়ে স্বাধীনতা যুদ্ধে পরাজিত পাকিস্তানের একটি তাবেদার রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল বাংলাদেশকে। ঘাতকরা শুধু জাতির জনককে হত্যা ছাড়াও মুছে দিতে চেয়েছিল জাতির জনকের স্বপ্নকে। যে স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। দেশ এখন উন্নয়নের শিখরে। তিনি আরো বলেন, জেনারেল জিয়ার ইঙ্গিতেই জাতির জনককে হত্যা করা হয়। ইতিহাসের এই নৃশংসতম হত্যাকান্ডের পরে জেনারেল জিয়া দেশদ্রোহীদের দিয়ে বিএনপি গঠন করেছিলেন। যার ফলে দেশে অপরাজনীতির সৃস্টি হয়েছে। ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে ঘাতকেরা বেসামাল হয়ে পড়ে। তাই বঙ্গবন্ধুর লাশকেও ভয় করেছিল তারা। যে উদ্দেশ্য নিয়ে জাতির শ্রেষ্ট সন্তানকে হত্যা করেছে তাদের সেই আশা সফল হয়নি। এখন বাংলার প্রতিটি ঘরে-ঘরে জন্ম নিয়েছে বঙ্গবন্ধু। যারা দেশের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অতন্দ্র প্রহরী হিসাবে কাজ করছে। যারা ইতিহাস বিকৃত করে বঙ্গবন্ধুর অবদান ও স্বাধীনতার ইতিহাস বদলে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল তাদের ইতিহাস ক্ষমা করেনি। যারা যুদ্ধাপরাধীদের গাড়ি পতাকা তুলে দিয়েছিল তারা এখন এতিমের টাকা চুরি করার অপরাধে সাজা ভোগ করছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া কামনা করে বলেন, তিনি আছেন বিধায় দেশ এখন উন্নতির শীর্ষ পর্যায়ে পৌঁছেছে। আমাদের সবাইকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। বাঙ্গালী জাতি এখন স্বাধীনতার সুফল পেতে শুরু করেছে। এতে নানা ভাবে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করছে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র। আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে কোন ষড়যন্ত্র আওয়ামী লীগকে থামাতে পারবে না। তিনি ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে মহেশখালী উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মহেশখালীর ১০ হাজার পরিবারের মাঝে চাউল বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে একথা বলেন। বেলা ১১টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার পাশা চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সম্পাদক এডঃ মুহম্মদ রুহুল আমিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্ঠা ডাঃ নুরুল আমিন, সহসভাপতি এম আজিজুর রহমান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শরীফ বাদশা, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য পৌর মেয়র মকছুদ মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ফরিদুল আলম, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক এডঃ আবু তালেব।

উপস্থিত ছিলেন সহসভাপতি নুরুল আলম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্রজ গোপাল ঘোষ, দপ্তর সম্পাদক নির্মল চক্রবর্তী,সাবেক চেয়ারম্যান শামসুল আলম, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সাজেদুল করিম, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক নাছির উদ্দিন, উপদপ্তর সম্পাদক এম আবদুল মান্নান, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রণব কুমার দে, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক এম রফিকুল ইসলাম, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আবদু শুক্কুর, সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার আলম ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হালিমুর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক পারভেজ আহমদ বাবু, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক কাউন্সিলর এবাদুল করিম বাদল, পৌর যুবলীগের আহবায়ক মোঃ মামুন, যুগ্ম আহবায়ক নেওয়াজ কামাল, পৌর শ্রমিক লীগের সভাপতি রিপন উদ্দিন ও ছাত্রনেতা শাহনেওয়াজ। আলোচনা সভা শেষে ১৫ আগস্ট শহীদ হওয়া জাতির জনকে পরিবার বর্গের রুহে আত্মার মাগফিরাত কামনা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘ কামনা করে মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

সকাল ১০ আশেক উল্লাহ রফিক এমপি মহেশখালী উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্য রাখেন। জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান শেষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহফুজুর রহমান। বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শরীফ বাদশা, পৌর মেয়র মকছুদ মিয়া,উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুল হাই, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ডাঃ নুরুল আমিন, সহসভাপতি এম আজিজুর রহমান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডঃ আবু তালেব।

বেলা ২টায় আশেক উল্লাহ রফিক এমপি মহেশখালী পৌর আওয়ামী লীগ আয়োজিত কাঙ্গালী ভোজ ও বড় মহেশখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত কাঙ্গালী ভোজে শরীক হন। বড় মহেশখালীতে উপস্থিত ছিলেন মোঃ ফোরকান, মোস্তাক আহমদ তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক এহছানুল করিম, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক এম আজিজুল হক, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজ মিয়া বাশি ও সাধারণ সম্পাদক নরুল আমিন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •