বার্তা পরিবেশক:
জমি দখল ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের নিকট থেকে চাঁদা দাবির অভিযোগে ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামাবাদ ৮নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বশির আহমদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা হয়েছে।

এ মামলায় আসামি রয়েছে তার ভাই জাফর আলম, দুইজন ভাতিজাসহ আরো ০৯ জন।

গত ১০ আগষ্ট কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে মামলাটি করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল শুক্কুরের ছেলে সাজ্জাদুল করিম। মামলার নং-সিআর: ৩৬৬/২১।

তিনি পোকখালী গোমাতলী (বর্তমানে ইসলামাবাদ ৮ নং ওয়ার্ডের আউলিয়াবাদ) এলাকার বাসিন্দা।

মামলার আসামিরা হলেন- সাবেক মেম্বার বশির আহমদ, তার ভাই জাফর আলম, ভাতিজা দিদার, রাকিব উল্লাহ, ইসলামাবাদ হাজিপাড়ার মৃত আবদুল জলিল সিকদারের ছেলে মুন্না, নূরুল আজিম, চৌফলদন্ডির নয়াবরপাড়ার আবুল কাসেম (অজ্ঞাত পিতা), রামু চাকমারকুলের আলী আহমদের ছেলে রাসেল, ইসলামাবাদ ৮ নং ওয়ার্ডের আউলিয়াবাদের মৃত জালাল আহমদের ছেলে ফরিদ ও মৃত সোলতানের ছেলে নূরুল ইসলাম।

মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিআইবি)কে নির্দেশ দেন বিচারক মোঃ হেলাল উদ্দিন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বাদি সাজ্জাদুল করিমের পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল শুক্কুরের মালিকানাধীন জমি অবৈধভাবে জবরদখলে চেষ্টা চালায় আসামিরা। হুমকি ধমকিও প্রদান করে। দাবিকৃত ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় ভাঙচুর চালানোর অভিযোগ করে বাদি। মামলার আর্জিতে ১৪৩, ৩২৩, ৩৮৫, ৩৭৯, ৩৫৪, ৪২৭ ও ৫০৬ (২)এর দন্ডবিধি আবেদন করলে বিজ্ঞ আদালত মামলা আমলে নিয়ে ২১/০৯/২০২১ইং এর মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দেন বিচারক।

এদিকে, মুক্তিযোদ্ধার বাড়িঘর ভাঙচুর ও হামলার অভিযোগে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কক্সবাজার জেলার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে উপজেলা শাখা বরাবর চিঠি ইস্যু করেছে বলে জানা গেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •