এম.মনছুর আলম,চকরিয়া (কক্সবাজার) :

‘ হাতি করলে সংরক্ষণ, রক্ষা পাবে সবুজ বন ‘ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারা দেশের ন্যায় কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জের আয়োজনে এবং ইউএসএইড এর ইকো লাইফ কার্যক্রম ও আইইউসিএন সার্বিক সহযোগীতায় পালিত হয়েছে বিশ্ব হাতি দিবস।
বৃহস্পতিবার (১২আগস্ট) চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জ কার্যালয়ে দিবসটি পালন করা হয়।
কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের সহকারি বন সংরক্ষক মো.আশিকুর রহমানের সভাপতিত্বে ও নেকমের সাঈদুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন
কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগ সহকারি বন সংরক্ষক মো. সোহেল রানা।
এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ইকো লাইফ প্রকল্প নেকমের ডিপিডি ড.শফিকুর রহমান, আইইউসিএন প্রকল্পের সিনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার ড. মিজানুর রহমান, সহকারি প্রোগ্রাম অফিসার শফিকুর রহমান, ফাঁসিয়াখালী সিএমসি’র সভাপতি ও ডুলাহাজারা কলেজের অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী।
এছাড়াও উক্ত অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম, প্রতিপাদ্যের বিষয়ের উপর নিবন্ধ পাঠ করেন ইকো লাইফ প্রকল্পের ম্যানেজার আবদুল কাইয়ুম, বক্তব্য রাখেন ফাঁসিয়াখালী সহ-ব্যবস্থাপনা কমিটির সহ-সভাপতি ও মহিলা নেত্রী এলমুন্নাহার মুন্নি।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বন উজাড়ের ফলে এখানকার বন ও বনজ সম্পদের অপরিমিত ক্ষতি হচ্ছে। আর সে ক্ষতির মাসুল দিতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। সম্প্রতি বর্ষা মৌসুমে ঘটছে পাহাড়ধসের মত ভয়াবহ ঘটনা। হারাতে হয়েছে বহু মানুষের প্রাণ। তবে এ ক্ষতি কাঠিয়ে উঠতে নতুন বনায়ন সৃষ্টি, ইকোপার্ক স্থাপন, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে গেম রির্জাভ স্থাপন ও সুষ্ঠু বন ব্যবস্থাপনার মতো পরিকল্পনা গ্রহণ করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন।
বক্তারা আরো বলেন, হাতি স্থলজ স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যে সবচেয়ে বড়। একটা সময় পৃথিবীজুড়ে কয়েক প্রজাতির হাতির বিচরণ থাকলেও কমতে কমতে তা এখন নেমে এসেছে মাত্র চারটিতে। এর মধ্যে দুটি আবার বিলুপ্তপ্রায়। মানুষ হিসেবে আমাদের নিজেদের প্রয়োজনেই জীব বৈচিত্র্য এবং বন রক্ষায় হাতিকে আমাদের প্রত্যেককেই বাঁচিয়ে রাখতে এগিয়ে আসা উচিত।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •