সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ
গভীর সমুদ্রে নিচাপের কারণে বিগত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিপাতে কক্সবাজার জেলার অনেক অঞ্চল প্লাবিত। রামু উপজেলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নও বন্যার ছোবল থেকে রেহাই পায়নি। বিস্তর এলাকা পানির নিচে তলিয়ে গেছে। দুর থেকে মনে হয় ঘর আর গাছপালা সব পানিতে ভাসছে। কৃষকেরা চলতি মৌসুমে আমন চাষের জন্য জমি তৈরির কাজ সম্পন্ন করে রেখেছিল। বেড জমিতে রোপাচারা সমূহ প্রায় রোপন উপযোগী হয়ে উঠেছে। এমন সময় বন্যার নির্মম থাবায় কৃষকদের সব প্রস্তুতিও যেন পানিতে ভেস্তে গেল। তাই বুধবার কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল লায়ন্স ক্লাবের উদ্যোগে রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের বন্যা কবলিত চাইন্দা,মিটাছড়ি মাদ্রাসা এলাকা ও পানিরছড়া এলাকায় ৩০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়। রশিদিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানায় ১০, ০০০টাকা দান করা হয়। ত্রাণ বিতরণ কাযক্রম উদ্বোধন করেন ক্লাবের ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মদ শাহেদ সালাউদ্দিন।
এছাড়াও সংশ্লিষ্ট এলাকার ওয়ার্ড মেম্বার ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন।
জেলার বন্যা দুর্গত জনপদে জীবন ও মানবিক বিপর্যয় থেকে রক্ষার জন্য অবিলম্বে ব্যাপক আকারে ত্রাণ তৎপরতা চালানো জরুরী বলে উল্লেক করেন-ক্লাবের ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মদ শাহেদ সালাউদ্দিন ।
এ সময় ডিস্ট্রিক্ট কো-চেয়ারপারসন ও ক্লাবের জেনারেল সেক্রেটারি রোকন উদ্দিন মুহাম্মাদ আল-মামুন বলেন, মানবিক সংকটকালীন মুহূর্তে অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছি আমরা। লায়ন্স ক্লাব সব সময় অসহায় মানুষের পাশে থেকেছে। ভবিষ্যতেও এভাবে সহায়তা দিয়ে পাশে থাকবে। লায়ন্স ক্লাবের দেয়া খাবার পেয়েছে খুশি হয়েছেন বন্যা কবলিত মানুষগুলো। তারা লায়ন্স ক্লাব কর্তৃপক্ষকে কৃতজ্ঞতা জানান।
এই ত্রাণ সামগ্রী ও দান কাযক্রমটি স্পন্সর করেছেন ক্লাবের সম্মানিত ডিরেক্টর আব্দুল্লাহ ও সৌদিপ্রবাসী সম্মানিত চার্টার মেম্বার ফরিদুল আলম।
এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন- ক্লাবের উপদেষ্টা স্পেশাল পি. পি,এড. একরামুল হুদা ,ক্লাবের ইয়ুথ ডেভলপমেন্ট ডিরেক্টর মিজানুল করিম,ডিরেক্টর ফান্ড রাইজিং মুহাম্মাদ আব্দুল্লাহ ,চার্টার মেম্বার যথাক্রমে শামসুদ্দীন ফারুকী,ওবাইদুল হান্নান প্রমুখ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •