মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে শুধু আগস্টের প্রথম ১০ দিনে অর্থাৎ গত ১ আগস্ট থেকে মঙ্গলবার ১০ আগস্ট পর্যন্ত ২৯ জনের প্রাণহানি হয়েছে। জেলায় কোনভাবেই থামানো যাচ্ছেনা-করোনায় মৃত্যুর উর্ধ্বগতি ও শনাক্তের হার। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, কঠোর বিধিনিষেধ (লকডাউন) প্রত্যাহার হওয়ায় পরিস্থিতি আরো নাজুক হতে পারে। ভেঙে পড়ার আশংকা রয়েছে জেলার করোনা চিকিৎসা ব্যবস্থা।

কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য মতে, করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ১ আগস্ট ৪ মৃত্যু হয়েছে জনের। গত ২ আগস্ট মৃত্যু হয়েছে ২ জনের, ৩ আগস্ট মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের, ৪ আগস্ট মৃত্যু হয়েছে ২ জনের, ৬ আগস্ট মৃত্যু হয়েছে ২ জনের, ৭ আগস্ট মৃত্যু হয়েছে ১ জনের, ৮ আগস্ট মৃত্যু হয়েছে ৪ জনের, ৯ আগস্ট মৃত্যু হয়েছে ৩ জনের এবং ১০ আগস্ট মৃত্যু হয়েছে ৫ জন রোগীর। আগস্টে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৩ জনের প্রাণহানি হয়েছে।

একই সুত্র মতে, আবার গত জুলাই একমাসে ৩১ দিনে ৬৪ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। আর ২০২০ সালের মার্চ হতে ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত ১৬ মাসে কক্সবাজারে করোনাতে মোট ১৯০ জনের মৃত্যু হয়েছে। জুলাইতে গড়ে প্রতিদিন ২ জনের বেশি করোনায় প্রাণহানি হয়েছে। ১০ আগস্ট পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে সর্বমোট ২১৯ জনের।

কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিসের পরিসংখ্যান মতে, ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের ১০ আগস্ট পর্যন্ত জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৯ হাজার ৭৭৫ জন। আক্রান্তদের মধ্যে ২ হাজার ৭০১ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী। রোহিঙ্গা আক্রান্তদের মধ্যে উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলোতে ২ হাজার ১৯৯ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী এবং টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলোতে ৫০২ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী রয়েছে।

কক্সবাজারে করোনার প্রকোপ শুরু হওয়ার পর থেকে গত প্রায় ১৬ মাসে কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করা ২১৯ জনের মধ্যে ২৯ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী। তারমধ্যে, উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলোতে ২৭ জন এবং টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলোতে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

কক্সবাজার জেলায় করোনায় ৩ আগস্ট পর্যন্ত মোট ২১৯ জন প্রাণহানির মধ্যে, শুধু কক্সবাজার সদর উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ৯৯ জন। একই সময়ে কক্সবাজার সদর উপজেলায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৭ হাজার ৫৯৩ জন।

এছাড়া, ১০ আগস্ট পর্যন্ত করোনাতে উখিয়া উপজেলায় ২৭ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী সহ মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ৪৩ জন এবং করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৭৮৪ জন। চকরিয়া উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছেন ২৩ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ২৯৫ জন। টেকনাফ উপজেলায় ২ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী সহ মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ২২ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৯৪৩ জন, রামু উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছেন ১৮ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ১৫১ জন। পেকুয়া উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছেন ৬ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ৫৯৭ জন, মহেশখালী উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছেন ৫ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ১২৮ জন, কুতুবদিয়া উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছেন ৩ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ২৬৪ জন।

২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের এপ্রিল পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে মোট ৯৮ জন। ২০২১ সালের মে, জুন, জুলাই এবং ১০ আগস্ট পর্যন্ত এই ৩ মাস ১০ দিনে কক্সবাজার জেলায় করোনায় মৃত্যুবরণ করেছে ১৩১ জন। তারমধ্যে, মে মাসে ১৪ জন, জুন মাসে ১৪ জন এবং জুলাই মাসে ৬৪ জন এবং আগস্টের প্রথম ১০ দিনে ২৯ জন মৃত্যুবরণ করেছে।

কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ১০ আগস্ট পর্যন্ত ১৬ হাজার ২০৮ জন সুস্থ হয়েছেন। আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার হার শতকরা ৮২’০৫ ভাগ। আবার সুস্থতার তুলনায় মৃত্যুর হার শতকরা ১’৩৫ ভাগ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •