শিপ্ত বড়ুয়া, রামু:
পুরো পৃথিবী ছোট একটি জীবাণুর কাছে জিম্মি হয়ে আছে দীর্ঘদিন। করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বিশ্বে চলছে লকডাউন বা শারীরিক দুরত্বের নানান পদ্ধত্বি।

করোনার এই ক্রান্তিলগ্নে ঘরে বসে বই পড়ার অভ্যাস বাড়াতে রামুর জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার নিয়েছে ডিজিটাল উদ্যেগ। গ্রন্থাগার ডট কম ডট বিডি (www.gronthagar.com.bd) নামে একটি ই-বুক লাইব্রেরী প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ডিজিটাল ই-বই পড়া কার্যক্রম পেয়েছে নতুন এক মাত্রা।

প্রায় দশটি ক্যাটাগরি ও ত্রিশ জন লেখকের তিনশত বই রয়েছে এই ই-বুক লাইব্রেরীতে। মোবাইলে কিংবা কম্পিউটারে বসেই ছাপা বইয়ের মতোই পড়া যায় সাহিত্য, বিজ্ঞান ও ধর্মের নানান বই।

গ্রন্থাগার ডট কম ডট বিডির প্রকল্প পরিচালক অসীম বড়ুয়া জানান, দেশের বিশাল প্রজন্ম ইলেকট্রনিক ডিভাইসে সময় দিচ্ছে দিনের বেশিরভাগ সময়। করোনার এই সময়ে বই পড়া যাতে বিলম্বিত না হয় তাই আমাদের এই উদ্যেগ।

শুধুমাত্র ই-বুক লাইব্রেরীতে সীমাবদ্ধ নেই এই প্রকল্প। লেখকদের জন্য করা হয়েছে গ্রন্থাগার ব্লগ (www.gronthagar.com.bd/blog)। যেখানে যেকেউ চাইলে সাহিত্য ও বিজ্ঞান বিষয়ে লিখতে পারেন। ব্লগটির সম্পাদনা করছেন অধ্যাপক নীলোৎপল বড়ুয়া।

তিনি আজকের পত্রিকাকে জানান, গ্রন্থাগার ব্লগ লেখালেখির নতুন এক মাত্রা দিয়েছে। রামুর প্রচুর প্রাচীন ইতিহাস নিয়ে গবেষণা এখানে নিয়মিত প্রকাশ হচ্চে। তাছাড়া দেশে ও দেশের বাইরের অনেক লেখক নিয়মিত লেখা পাঠাচ্ছেন।

এদিকে নিয়মিত গ্রন্থাগার ই-বুক লাইব্রেরীতে বই পড়েন আব্দুল মান্নান নামের এক পাঠক। তিনি জানান, আগে জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার খোলা থাকাকালীন বইয়ের হার্ডকপি পড়তাম কিন্তু সম্প্রতি করোনার কারণে বই সংগ্রহ করতে পারি না। তাই নিয়মিত এখানে বই পড়ছি।

বইয়ের চেয়ে ভালো বন্ধু কেউ হয় না। বিশাল একটি ই-বুক লাইব্রেরী চাইলেই আপনি এখন রাখতে পারেন আপনার পকেটে কিংবা ব্যাগে। প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের আশা এই প্রকল্পের মাধ্যমে ডিজিটাল বই পড়ার অভ্যাস বাড়বে। চিন্তার কঠিন দুয়ার, মনের গহীন জানালা হবে উন্মুক্ত।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •