সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:
সহধর্মিণীর অনুপ্রেরণায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা সংগ্রামের মহানায়ক হয়ে উঠেছিলেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পেছনে ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের অবদান অনস্বীকার্য।

রোববার (০৮ আগষ্ট) বিকালে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মদিন উপলক্ষে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে বক্তারা এ কথা বলেন। জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান।

সভায় জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ‘বঙ্গমাতা ছিলেন অত্যন্ত আন্তরিক। বঙ্গবন্ধু যখন জেলে ছিলেন, তখন বঙ্গমাতা নিজের গহনা বিক্রি করে আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সাহায্য করেছেন। বঙ্গবন্ধুকে যখন জেলে নিল, তখন বঙ্গমাতা পরিবার সামলানোর পাশাপাশি দলও পরিচালনা করেছেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর দুঃখকে বুকে ধারণ করেছেন, সুখকে ধারণ করেননি। তিনি চাইলে বঙ্গভবনে থাকতে পারতেন। তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গমাতা বঙ্গবন্ধুকে নিঃস্বার্থভাবে অনুপ্রেরণা ও ভালোবাসা দিয়েছেন। পৃথিবীর কোনো নেতার স্ত্রীর এমন নিঃস্বার্থ সহযোগিতার কথা আমরা শুনিনি। বঙ্গমাতা পৃথিবীর নারীদের জন্য অনুকরণীয় নাম। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে, বঙ্গবন্ধুর নাম থাকবে, তেমনি বঙ্গমাতার নামও থাকবে।’

 

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, ‘মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর অশেষ রহমতে বেগম ফজিলাতুন্নেছার মতো একজন মহীয়সী নারীকে জীবন সঙ্গিনী পেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় পারিবারিক পিছুটান থাকলে কোনো মহৎ কাজ করা সম্ভব নয়। বঙ্গবন্ধুর পরিবারে সেটা ছিল না। মূলত বঙ্গবন্ধু মহীরুহ বা স্বাধীনতা সংগ্রামের মহানায়ক হয়ে উঠেছেন তার সহধর্মিণীর অনুপ্রেরণায়।’

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর পরিবারকে হত্যাকারীরা আজ দেশের মানুষের কাছে ঘৃণিত। কিন্তু জিয়া-মোস্তাকের দুসরেরা এখনো দেশকে পাকিস্তান বানাতে নানা ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছে। তাই আমাদের সকল ভেদাভেদ ভুলে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। ‘

জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এড. রনজিত দাশের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন সাবেক সাংসদ অধ্যাপিকা এথিন রাখাইন, শাহ আলম চৌধুরী রাজা, এড. বদিউল আলম সিকদার, রেজাউল করিম, আশেক উøাহ রফিক এমপি, মাহবুবুর রহমান চৌধুরী, নুরুল আবছার চেয়ারম্যান, ইউনুচ বাঙালী, ইঞ্জিনিয়ার বদিউল আলম, এড. তাপস রক্ষিত, এম,এ মনজুর, ড. নুরুল আবছার, এড. সুলতানুল আলম, এড. আবদুর রউফ, মিজানুর রহমান, মিজানুর রহমান ইকরা, নজিবুল ইসলাম, উজ্জ্বল কর, আতিক উদ্দিন চৌধুরী, আয়েশা সিরাজ, আরিফুল মওলা, এস,এম সাদ্দাম হোসেন, মারুফ আদনান, মৌলানা রফি উদ্দিন। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন মাওলানা নুরুল আলম সরকার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •