জাহাঙ্গীর আলম,টেকনাফ:

কক্সবাজার সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে দিন দিন মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এদের কর্মকান্ড জনমনে এক ধরণের আতংক বিরাজ করছে। এবং মাদক ব্যবসা লাফিয়ে বাড়ছে।

জানা যায় , গত ৪ আগস্ট টেকনাফের হাবিব ছড়ায় অস্ত্র ও মাদকের ৬টি মামলার পলাতক আসামী হাবিবুর রহমান হাবিব’কে পুলিশ আটক করে।আটকের পর থানায় নিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় মেম্বার সৈয়দুল ইসলাম ও তার সহযোগিরা পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে হাতকড়া অবস্থায় তাকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এঘটনায় পালিয়ে যাওয়া আসামী হাবিবুর রহমান এখনো আটক হয়নি।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনর্চাজ(ওসি)মোঃ হাফিজুর রহমান জানান,গত ০৪ আগস্ট পুলিশের উপর মাদক ব্যবসায়ীদের হামলা ও আসমাী ছিনতাইয়ের ঘটনায় অস্ত্র ও মাদক মামলার পলাতক আসামী হাবিবুর রহমান হাবিব কে আটকের জন্য অভিযান অব্যহত রয়েছে।

তবে এঘটনার সাথে জড়িত ৪৪জন কে আসামী করে থানায় মামলা হয়েছে।এবং ১৪জন আটক হয়।
তিনি আরও জানান,সরকার ঘোষিত মাদক বিরোধী জিরো ট্রলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

উল্লেখ্য, সীমান্ত শহর টেকনাফ শামলাপুর বাহাড়ছড়ায় পুলিশ চেকপোস্টে এক বছর পুর্বে তৎকালীন পুলিশের গুলিতে মেজর (অব:)সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ নিহত হওয়ার পর কক্সবাজার জেলায় পুলিশের বড় ধরণের রদবদল হয়।

বিগত সময়ে পুলিশ সহ অন্যান্য আইনশৃংখলা বাহিনীর কঠোর অভিযান অব্যাহত থাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা অনেকটা কোনঠাসা ছিল।

ঘটনার পর পুলিশের বড় ধরণের রদবদলসহ মাদক বিরোধী অভিযান দুর্বল হওয়ায় মাদক ব্যবসায়ীরা আবারও  মাদক ব্যবসা শুরু করে।

স্থানীয় জনসাধারণের দাবি মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর অভিযান পরিচালনা করা হোক ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •