আবদুল মজিদ, চকরিয়া :
গত কয়েকদিনের ভারি বর্ষণ ও মাতামুহুরী নদীতে উজান থেকে নেমে আসা বানের পানিতে চকরিয়ার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করে ডুবে রয়েছে হাজার হাজার বসতবাড়ি ও ফসলাদী। এর মধ্যেও গত তিন দিন ধরে চকরিয়ায় পল্লী বিদ্যুৎ সচল রাখার চেষ্টা চালিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। কিন্তু বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হওয়ায় চকরিয়া উপজেলার যেসব এলাকায় পল্লী বিদ্যুতের সরবরাহ থাকবেনা, সেসব এলাকা সমূহের মধ্যে রয়েছে; কাকারা, সুরাজপুর-মানিকপুর, লক্ষ্যারচর, কৈয়ারবিল, বরইতলী, হারবাং, পূর্ববড়ভেওলা, বিএমচর ও কোনাখালী ইউনিয়নের আংশিক এলাকা। বন্যা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এসব এলাকায় পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ বন্ধ থাকবে।

কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুত সমিতি চকরিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) মোঃ মোছাদ্দেকুর রহমান জানিয়েছেন, কঠিন বন্যার পরিস্থিতির মধ্যেও গত তিন দিন পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু ২৮ জুলাই রাত থেকে বন্যার অতিরিক্ত পানিতে সমগ্র এলাকা, ববসতবাড়ি, বিদ্যুতের মিটার ও ফসালাদী ডুবে যাওয়ায় এবং বিদ্যুতে খুটি ভেঙ্গে পড়ে দূর্ঘটনার আশংঙ্কা থাকায় উপরোক্ত এলাকায় ২৯জুলাই থেকে পরবর্তী সিদ্ধান্ত না দেওয়া পর্যন্ত পল্লী বিদ্যুতের সরবরাহ বন্ধ থাকবে। সাময়িক অসুবিধার জন্য কর্তৃপক্ষ দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •