হেলাল উদ্দিন, টেকনাফ:
টেকনাফে পাহাড় ধসে একই পরিবারের পাঁচ জন নিহত ও তিন জন আহত হয়েছে। এসময় তিনটি বাড়ী ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
২৮ জুলাই (মঙ্গলবার) রাত ১টার দিকে উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের পানখালী বিলিজারপাড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, টানা ভারী বৃষ্টির কারণে মঙ্গলবার রাত ১টায় বাড়ীর পার্শ্ববর্তী পাহাড়ের একটি বড় অংশ স্হানীয় মৃত লাল মিয়ার পুত্র ছৈয়দ আলম, আজি উল্লাহর পুত্র নুরুল আমিন ও মৃত আজি উল্লাহ মেয়ে হাসিনা বেগমের বসত বাড়িতে পড়ে। ঐ সময় বাড়ীতে ঘুমিয়ে থাকা ছৈয়দ আলম, তার স্ত্রী রেহেনা বেগম (৩৮) পুত্র আব্দু শুক্কুর (২০), মোঃ জুবাইর (১০), জিয়া উদ্দিন (৭), কণ্যা কহিনুর আক্তার (১২), জায়নুফা আক্তার (১০) ও মৃত আজি উল্লাহ মেয়ে হাসিনা বেগম মাটি চাপা পড়ে। বিকট শব্দের খবর পেয়ে স্থানীরা ঘটনাস্থলে এসে আব্দু শুক্কুর, মোঃ জুবাইর, জিয়া উদ্দিন, কন্যা কহিনুর আক্তার, জায়নুফা আক্তারের মরদেহ উদ্ধার করে। এছাড়া ছৈয়দ আলম, তার স্ত্রী রেহেনা বেগম ও হাসিনা বেগমকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করে। খবর পেয়ে গভীর রাতেই হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি বলেন, পাহাড় ধসের ঘটনায় ৪নং ওয়ার্ডের বিলিজার পাড়ার সৈয়দ আলমের তিন ছেলে ও দুই মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বাড়ির পাশের পাহাড় ধসে পড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।
চেয়ারম্যান রাশেদ আরো জানান, টানা বর্ষণে হ্নীলা ইউনিয়নে শতশত বসতবাড়ি প্লাবিত ও বিধ্বস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সহায় সম্পদ। মানুষের দুর্ভোগ চরমে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জরুরি ভিত্তিতে সহযোগিতা চান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •