আতিকুর রহমান মানিক:
ঈদগাঁও উপজেলার সাথে রামু উপজেলার ঈদগড় ইউনিয়নের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ঈদগাঁও নদীর প্রবল পাহাড়ী ঢলের তোড়ে বুধবার (২৮ জুলাই) সকাল ১০ টায় ঈদগাঁও-ঈদগড়-বাইশারী সড়কের ঈদগড় ইউনিয়নের পানের ছড়া পয়েন্টে প্রায় ১০০ ফুট সড়ক নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেলে এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়৷

ঈদগড় ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সাংবাদিক কামাল শিশির জানান, ঈদগাঁও উপজেলা ও ঈদগাঁও বাজারের সাথে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় উভয় পাশে যাত্রীবাহী ও পন্যবাহী যানবাহন আটকা পড়েছে।

সবজি বিক্রেতা আবদুল কাইউম জুয়েল জানান, সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় ঈদগড় বাইশারীর পাহাড়ী এলাকায় উৎপাদিত সবজি ঈদগাঁও বাজারে সরবরাহ করা যাচ্ছেনা।

কলার আড়তদার হামিদ সিকদার বলেন, ঈদগড়-ঈদগাঁও সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় বিকল্প পথে বাইশারী-গর্জনিয়া-নাইক্ষ্যংছড়ি-রামু হয়ে কলা পরিবহন করতে হবে। এর ফলে কয়েকগুন বেশী পরিবহন খরচ পড়বে।

ঈদগাঁও-সড়কের সিএনজি বেবিট্যাক্সি চালক পিন্টু বলেন, গত কয়েকবছর ধরে খরস্রোতা ঈদগাঁও নদীর মূল স্রোতধারা সড়কের পাশ দিয়ে প্রবাহিত হলেও ভাঙ্গন প্রতিরোধ অথবা নদী শাসনের কোন উদ্যোগ নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। ফলে সড়ক নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেল।

রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা বলেন, এ সড়কটা পার্বত্য চট্টগ্রাম সড়ক বিভাগের আওতাধীন। খোঁজ খবর নিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করার চেষ্টা করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •