এ.এম হোবাইব সজীব, মহেশখালী:
মহেশখালী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী কালারমারছড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও আদর্শ দাখিল মাদ্রাসা সংলগ্ন ছরাখাল থেকে প্রতিনিয়ত বালি উত্তোলন করা হচ্ছে। ফলে পাশ্ববর্তী খেলার মাঠটি হুমকির পাশাপাশি বিলীন হওয়ার উপক্রম হয়েছে। ঢলের পানি ঢুকে প্লাবিত হতে দেখা গিয়েছে কয়েকটি বাড়ি-ঘরও।
স্থানীয় প্রভাবশালীদের ইন্দনে বালু উত্তোলন হচ্ছে। সে কারণে যে কোন মূহূর্তে ছরার গাইডওয়ালটি ভেঙ্গে পড়তে পারে।
কালারমারছড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাস্টার শফিউল আল তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, বাড়ির সদর দরজায় ওয়াল তুলার কাজ চলছে। বিশ্রী হলেও উপায় নেই। বাড়ির ভেতরে পানি ঢোকা রোধ করতে হবে। কারণ বৃষ্টিতে কালারমারছড়ার ছড়ার গাইড ওয়ালের (মাঠের দক্ষিণ-পশ্চিম কর্ণারে) অবশিষ্ট অংশটুকুও বিলীন হয়ে গেছে। এখন যে কোন মুহুর্তে ইউনিয়ন পরিষদের দক্ষিণ পার্শ্ব দিয়ে ভেঙ্গে মোহাম্মদ শাহ্ ঘোনা প্লাবিত হতে পারে।
জানা যায়, বর্তমান কালারমার ছড়াবাজার কমিটির অস্থায়ী এক নেতার নেতৃত্বে একটি সংস্থার দায়িত্বে থাকা নাগু মিয়া নামে এক ব্যক্তিসহ কয়েকজন মিলে মূলত এ ছড়ার বালি উত্তোলন করে বিক্রি করছেন প্রতিনিয়ত। নাগু মিয়া বালি উত্তোলনের বিষয় স্বীকার করে বলেছেন, বালি তুলতে খোদ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি তাকে নির্দেশ দিয়েছেন।
মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহফুজুর রহমান বলেন, পরিবেশ ক্ষতি হয় বা ছড়া থেকে মাটি তুলে বৈচিত্র্য হুমকির মুখে ফেলার মতো কেউ অপরাধ করলে সে যত প্রভাবশালী হোকনা কেন আমরা সাথে সাথে ব্যবস্থা নিবো।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •