সিবিএন ডেস্ক:
আফগানিস্তানের ১৩ প্রদেশে সেনাবাহিনীর অভিযানে ২৬২ তালেবান সদস্য নিহত হয়েছে বলে এক টুইটে জানিয়েছে দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের টুইটে গতকাল শনিবার বলা হয়েছে, ২৪ ঘণ্টায় আফগানিস্তানের লাগমান, নানগারহার, নুরিস্তান, কুনার, গজনি, পাকতিয়া, কান্দাহার, হেরাত, বাল্‌খ, জুযজান, হেলমান্দ, কুন্দুজ ও কাপিসা প্রদেশে অভিযান চালানো হয়।

টুইটে আরও বলা হয়, অভিযানে ১৭৬ তালেবান সদস্য আহত হয়েছে। এ সময় সেনাবাহিনী তালেবানের কাছ থেকে বিপুল অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করে।

এদিকে, আফগানিস্তানের শতকরা ৯০ ভাগ সীমান্তের ওপর নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করার যে দাবি তালেবান করেছে, তা প্রত্যাখ্যান করেছে আফগান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ফুয়াদ আমান বলেছেন, আফগান সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকার পরিধি ক্রমেই বিস্তৃত হচ্ছে এবং হাতছাড়া হয়ে যাওয়া জেলাগুলো তালেবানের কাছ থেকে একের পর এক পুনরুদ্ধার করা হচ্ছে।

আফগানিস্তানের হেরাত প্রদেশ থেকে পাওয়া আরেক খবরে জানা গেছে, সেখানকার কারাখ জেলায় তালেবানের একটি বড় ধরনের অভিযান প্রতিহত করেছে সেনাবাহিনী। দাবি করা হচ্ছে, গত শুক্রবার জেলাটি তালেবানের হাত থেকে পুনরুদ্ধার করেছে আফগানিস্তানের সরকারি সৈন্যরা।

তালেবান ঠেকাতে রাতে কারফিউ:
আফগানিস্তানে একের পর এক শহর দখল করছে তালেবান। আফগান সরকার তালেবানের অগ্রগামিতা থামাতে সে দেশের বেশির ভাগ এলাকাজুড়ে গতকাল শনিবার অনির্দিষ্টকালের জন্য রাত্রিকালীন কারফিউ জারি করেছে। সংবাদমাধ্যম সংবাদমাধ্যম ভয়েস অব আমেরিকা এ খবর জানিয়েছে।

সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে ইসলামী বিদ্রোহী গ্ৰুপ তালেবান দ্রুত যুদ্ধক্ষেত্রে সফল হয়ে আফগানিস্তানের প্রায় ৩৪টি প্রদেশের রাজধানীসহ দেশটির রাজধানী কাবুলের কাছে এসে পৌঁছেছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে দেশটির প্রায় সব প্রদেশে রাত্রিকালীন কারফিউ জারি করা হয়েছে।

আফগান স্বরাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্রের বরাত দিয়ে ভয়েস অব আমেরিকা জানিয়েছে, দেশটির সব প্রদেশে রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত কারফিউ জারি করা হয়েছে। তবে কারফিউ’র আওতায় থাকবে না কাবুল, নানগর্হার ও পাঞ্জশির প্রদেশ।

স্বরাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র আহমেদ জিয়া জিয়া বলেন, তালেবান সাধারণত রাতের শেষ ভাগে সন্ত্রাসী ও নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড চালায়, তাই সহিংসতা এড়াতে জনগণের রাত্রিকালীন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হচ্ছে।

গত মে মাসের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র ও জোটবাহিনী আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু করলে, তালেবান ব্যাপক আগ্রাসী অভিযান শুরু করে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •