অনলাইন ডেস্ক: পদ্মা সেতুর পিলারের সঙ্গে আবারও ফেরির ধাক্কা লেগেছে। শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বাংলাবাজার ঘাট থেকে ২৯টি যানবাহন নিয়ে শিমুলিয়া ঘাটে আসার পথে রো রো ফেরি শাহ জালাল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সেতুর ১৭ নম্বর পিলারে আঘাত করে। এর মাত্র তিন দিন আগে গত মঙ্গলবার রো রো ফেরি শাহ মখদুমও পদ্মা সেতুর ১৬ নম্বর পিলারে ধাক্কা দেয়।

এভাবে বার বার পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা লাগার ঘটনা কেন ঘটছে? এ বিষয়ে জানতে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) কয়েকজন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা হয়। তারা বলেন, ‘অসর্তকতার কারণে এগুলো ঘটছে। তাছাড়া পদ্মা নদীতে তীব্র স্রোতের টানে অনেক সময় ফেরি নিয়ন্ত্রণে রাখা অসম্ভব হয়ে পড়ে। অন্যদিকে, এই রুটে অনেক পুরাতন ফেরিও চলে, যেগুলোর যেকোনও যন্ত্রাংশ যেকোনও সময় বিকল হয়ে ফেরি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।’

তবে শুক্রবারের (২৩ জুলাই) ঘটনায় ফেরির চালককে সাময়িক বরখাস্ত করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হলেও, গত মঙ্গলবারের ঘটনায় কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল কি-না তা কেউ জানাতে পারেননি। বরং, পদ্মা সেতুর ১৬ নম্বর পিলারে ফেরি শাহ মখদুমের ধাক্কা লাগার ঘটনা অস্বীকার করে আসছে বিআইডব্লিউটিসি। তাদের দাবি, সেদিন পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরি শাহ মখদুম কোনও ধাক্কা দেয়নি।

কয়েক দিনের ব্যবধানে পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা লাগার ঘটনার বাইরেও এই নৌ রুটে চলাচলরত ফেরি অন্যকিছুর সঙ্গে ধাক্কা লেগে দুর্ঘটনায় পড়ার উদাহরণ রয়েছে বেশকিছু।

গত বছরের ৭ ডিসেম্বর রাত ১২টার দিকে এই রুটে ড্রেজারের পাইপের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ডাম্ব ফেরি রানীগঞ্জের তলায় ফাটল ধরে। পরে যাত্রী ও যানবাহন বাংলাবাজার ঘাটে দ্রুত নামিয়ে দেওয়ার পর নোঙর করা হলে ফেরিটি ডুবে যায়। তবে, এসময় প্রচণ্ড কুয়াশা ছিল বলে জানা যায়।

আবার, ২০১৬ সালের ৪ অক্টোবর সন্ধ্যায় এই নৌ রুটে শিমুলিয়া ঘাটের অদূরে মাঝ পদ্মায় ড্রেজারের পাইপের সঙ্গে ধাক্কায় যমুনা নামে একটি ডাম্প ফেরির তলা ফেটে যায়। পরে পদ্মার চরে নোঙর করে পাম্প দিয়ে ফেরির পানি অপসারণ করে ফেরিটি মেরামত করা হয়েছিল।

কেন ফেরিগুলো এমন দুর্ঘটনায় পড়ে—এ বিষয়ে গত মঙ্গলবার পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা দেওয়া ফেরি শাহ মখদুমের চালক আমির হোসেনের কাছে জানতে চাওয়া হয়। তবে, তিনি এ ব্যাপারে কিছু বলতে রাজি হননি। এমনকি পদ্মা সেতুর পিলারে তার ফেরির ধাক্কা লাগার বিষয়টিও অস্বীকার করেন আমির হোসেন।

বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মোহাম্মদ ফয়সাল জানান, নানা কারণেই ফেরি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে। অনেক সময় ফেরির ইঞ্জিন বা অন্য কোনও যন্ত্র হঠাৎ বিকল হয়ে পড়তে পারে।

এদিকে, রো রো ফেরি শাহ জালালের পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা দেওয়ার ঘটনা তদন্তে চার সদস্যের কমিটি গঠন করেছে বিআইডব্লিউটিসি। তদন্ত কমিটির সদস্য বিআইডব্লিউটিসির এজিএম (মেরিন) আহম্মেদ আলী জানান, অসর্তকতা ও স্রোতের কারণে ফেরি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গিয়ে পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা দিতে পারে। তবে অধিকতর তদন্ত করলে বিস্তারিত জানা যাবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গত মঙ্গলবারের ঘটনায় ফেরিচালকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল বলে জানি। তবে, আমি নিশ্চিত নই।

এ ব্যাপারে রো রো ফেরি শাহ মখদুমের চালক আমির হোসেন বলেন, তিনি ছুটিতে আছেন। এর বেশি কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।

পদ্মা সেতুর পিলারে বারবার ফেরির ধাক্কা লাগার বিষয়ে পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প ব্যবস্থাপক দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের বলেন, এই রুটে ফেরি চলাচল বন্ধের আপাতত কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। পিলারের কোনও ক্ষতি হয়নি বলে জানান তিনি।

  • বাংলাট্রিবিউন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •