সংবাদদাতা:
কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও বাজারের এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে নির্ধারিত মূল্যের অধিক দামে পণ্য বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে ই-মেইলে অভিযোগ দায়ের করেছেন নূরুল ইসলাম নামের একজন ভোক্তভোগি। তিনি ঈদগাহ আদর্শ শিক্ষা নিকেতন এর শিক্ষক ও মাধ্যমিক শিক্ষক কর্মচারী ঐক্য পরিষদের সচিব
অভিযোগকারী সূত্রে জানা যায়, তিনি ঈদগাঁও বাজারের বাঁশঘাটা রোডে অবস্থিত মেসার্স ইলা হার্ডওয়্যার এন্ড ইলেক্ট্রনিক্স (টুনু পালের দোকান) থেকে ১৪ জুলাই ইঁদুর মারার এক প্যাকেট বিষটোপ ক্রয় করেন। পণ্যের প্যাকেটে ৪০ টাকা মূল্য নির্ধারিত থাকলেও দোকানদার তার নিকট থেকে ৬০ টাকা মূল্য রাখেন। অতিরিক্ত মূল্য নেওয়ার বিষয়টি দোকানদারকে অবগত করলে ‘আগের কেনা মাল, এখন দাম বেশি’ বলে দোকানদার তাকে প্রবোধ দেন। পরে পণ্য ক্রয়ের রশিদ নিয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে তিনি অভিযোগটি দায়ের করেন।
অভিযোগ সূত্রে আরও জানা যায়, তিনি মাস তিনেক পূর্বেও একই দোকান থেকে একই পণ্য ক্রয় করলে তখনো ৬০ টাকা মূল্য রাখেন। তখন রশিদ না নেওয়ায় তিনি অভিযোগ করতে পারেন নি।
জানা যায়, টুনু পালের দোকানটি টুনু পাল বেঁচে থাকাকালে দীর্ঘ অনেক বছর ধরে সুনামের সাথে ব্যবসা করেছে। টুনু পালের মৃত্যু পরবর্তী তার সন্তানেরা ব্যবসার হাল ধরলে অতি লোভের কারণে পিতার ব্যবসায়িক সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে ব্যর্থ হন।
বাস স্টেশনের ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন মনির জানান, ইঁদুর মারার একই বিষটোপ তিনি ৩৭ টাকা দরে বিক্রি করেন। ৪০ টাকার পণ্য ৬০ টাকায় বিক্রি করা অবশ্যই গ্রাহক হয়রানী।
জানতে চাইলে অভিযুক্ত ব্যবসায়ী মিল্টন পাল বলেন, ‘আমারটা হার্ডওয়্যারের দোকান। ইঁদুর মারার ওষুধ বিক্রি করি না।’ জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, কক্সবাজার এর সহকারী পরিচালক মোঃ ইমরান হোসাইন বলেন, ‘অভিযোগ নথিভুক্ত করেছি। দুই পক্ষের উপস্থিতিতে শুনানির মাধ্যমে অভিযোগ নিষ্পত্তি করা হবে।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •