অনলাইন ডেস্ক : টানা ১৪ দিন বন্ধ থাকার পর শর্ত মেনে সড়কে বাস চলাচল শুরু করতে যাচ্ছে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী অর্ধেক আসন খালি রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালু হচ্ছে দূরপাল্লার বাস ও যাত্রীবাহী লঞ্চ। তবে এতে সন্তুষ্ট নন বাস মালিকরা। এ সময়ে বাস চলাচলের অনুমতি দেওয়ায় যাত্রী পাওয়া মুশকিল হবে বলে মনে করছেন তারা।

মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) চলমান কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল করে জারি করা প্রজ্ঞাপনে সব ধরনের গণপরিবহন চলাচলে অনুমতি দেওয়া হয়।

বুধবার (১৪ জুলাই) মধ্যরাত থেকে শর্ত মেনে চলবে বাস। তবে মোট আসন সংখ্যার অর্ধেকের বেশি যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে কঠোরভাবে। এর আগে নির্ধারিত ভাড়া যে ৬০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছিল তার বেশি না নেওয়া, প্রতি টিপ শুরু ও শেষে জীবাণু নাশক দিয়ে গাড়ি জীবাণুমুক্ত করতে বলা হয় ওই প্রজ্ঞাপনে।

এছাড়া পরিবহন সংশ্লিষ্ট মোটরযান চালক, যাত্রীসহ সকলকে বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধান ও স্যানিটাইজার ব্যবহার নিশ্চিত করার দিক নির্দেশনা আগে থেকেই আরোপ করা রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে পরিবহন মালিক সমিতির নেতা খন্দকার এনায়েত উল্লাহ সারাবাংলাকে বলেন, এমন সময় বাস চলাচলে অনুমতি দেওয়া হয়েছে, যখন কোনো যাত্রী পাওয়া যাবে না। তার ওপরে অর্ধেক আসন খালি রাখতে হবে। যদিও যাওয়ার যাত্রী পাওয়া যায় তবে আসার সময় প্রতিটি বাস খালি আসতে হবে। কারণ ঈদের পরপরই কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হচ্ছে। তখন থেকে আবার বাস চলাচল বন্ধ থাকবে।

এদিকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) সকাল ছয়টা থেকে সব ধরনের যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল শুরু করবে। তবে সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনেই চালাবেন তারা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •