এম.জিয়াবুল হক ,চকরিয়া:

দুর্যোগ দুর্দিনে জনগনের পাশে থেকে বারবার জনকল্যাণে নিবেদিতভাবে কাজ করেন বলেই ইতোমধ্যে পৌরবাসির পক্ষথেকে মানবতার ফেরিওয়ালা উপাধি পেয়েছেন চকরিয়া পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী। আর সেই তিনি এবার দায়িত্ব নিয়েছেন সমাজে নানাভাবে অবহেলিত ও পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জীবনমান উন্নয়নে। পৌরসভার পক্ষথেকে প্রতিবন্ধী মানুষের জন্য নিয়েছেন নানামুখী কল্যাণমুলক অনেক উদ্যোগ।

এরই অংশহিসেবে সোমবার ১২ জুলাই চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী প্রতিবন্ধী মানুষের পাশে থেকে আরও একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এদিন তিনি চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবা নিতে আগত প্রতিবন্ধী মানুষের আশ্রয়স্থল ‘অফিস ঘরে’ কর্মরত কর্মকর্তা বেগম আয়াতুন্নাহারকে দিয়েছেন একসঙ্গে ৬ মাসের বেতনের টাকা।

এসএআরপিভির কর্মকর্তা ইয়াছমিন সুলতানা বলেন, এসএআরপিভি (সার্ভ) বাংলাদেশ চকরিয়া কার্যালয়ের অধীনে চকরিয়া উপজেলা সরকারী হাসপাতালের নীচ তলায় সেবা নিতে আগত প্রতিবন্ধী মানুষের জন্য এই ‘অফিস’ ঘরটি চালু করা হয়েছে চলতি বছরের জানুয়ারী থেকে। এই অফিস ঘরটি প্রতিবন্ধী মানুষের জন্য বরাদ্দ দিয়েছেন চকরিয়া উপজেলা সরকারী হাসপাতালে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার মোহাম্মদুল হক। এরপর থেকে এই অফিসে সেবাপ্রাপ্তি প্রতিবন্ধীদের জন্য কাজ করছেন বেগম আয়াতুন্নাহার। আর কর্মরত এই কর্মকর্তার মাসিক ভিত্তিতে বেতনের দায়িত্ব নেন চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী।

তিনি বলেন, সোমবার ১২ জুলাই মেয়র মহোদয় উপস্থিত হয়ে প্রতিবন্ধি অফিসে কর্মরত কর্মকর্তা আয়াতুন্নাহার এর হাতে তুলে দিয়েছেন ছয় মাসের বেতন। মেয়র মহোদয় চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে প্রতিবন্ধীদের জন্য এই ধরণের একটি সুন্দর উদ্যোগ গ্রহন করায় এসএআরপিভি পিএইচআরপিবিডি প্রকল্পকে ধন্যবাদ দিয়েছেন।

প্রতিবন্ধী অফিসে কর্মরত কর্মকর্তা বেগম আয়াতুন্নাহারের হাতে বেতনের টাকা বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন এসএআরপিভি কক্সবাজারের আঞ্চলিক সমন্বয়ক মো.মাকসুদুল আলম মুহিদ, সাহায্য সংস্থা নবায়নযোগ্য শক্তির পরিচালক মো.কামরুজ্জামান, এসএআরপিভির বিভিন্নস্তরের কর্মকর্তা এবং এলায়েন্স বডির সদস্যবৃন্দ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •