এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া:

অবিভক্ত চকরিয়া উপজেলা (চকরিয়া-পেকুয়া) আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক, নুরুল কাদের বি কম এখন সরকারী হাসপাতাল বেডে মৃত্যুর প্রহর গুনছেন। অর্থাভাবে উন্নত চিকিৎসা সেবা নিতে পারছেন না তিনি। আওয়ামী রাজনীতিতে পরিচ্ছন্ন ইমেজের অধিকারী অসম্ভব ত্যাগী ও পরীক্ষিত সংগঠক নুরুল কাদের বি কম দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ হয়ে ঘরবন্দি থাকলেও দূর্দিনে পাশে নেই কেউ এই অবস্থায় একপ্রকার অসহায় অবস্থায় দিনানিপাত করছেন তিনি ও পরিবার।

গত তিনদিন আগে হঠাৎ তিনি অসুস্থ হলে পরিবার সদস্যরা তাকে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক না থাকায় তার উন্নত চিকিৎসা হচ্ছেনা। এদিকে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, শনিবার ( ১০ জুলাই) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কাদের বি কম ও তার ছেলে রাজীব চৌধূরীর করোনা রির্পোট পজেটিভ আসে।

অসুস্থ আওয়ামীলীগ নেতা নুরুল কাদের বি কম এর বড় ছেলে রাজিব বলেন, সুস্থতার জন্য আমার পিতার উন্নত চিকিৎসার দরকার। টাকার অভাবে বর্তমানে তা হচ্ছেনা। আমার পিতা উন্নত চিকিৎসা পেলে হয়তো তিনি সুস্থ হয়ে উঠবেন। এজন্য আমি সকলের কাছে আমার পিতার জন্য দোয়া চাই।

চকরিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা জাহাঙ্গীর বুলবুল বলেন, নূরুল কাদের বি কম একজন নির্লোভ রাজনীতিবিদ ছিলেন। তিনি মানুষের জন্য রাজনীতি করেছেন। নিজের জন্য কিছু করেননি। সৎভাবে জীবন যাপন করেছেন। কিন্তু জীবন সায়াহ্নে এসে এই দুর্দিনে দলীয় কোন ব্যক্তি তার সাহায্যে এগিয়ে আসেনি।

নুরুল কাদের বিকম ৭০ দশকে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী কানংগো পাড়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাথে জড়িত ছিলেন। ১৯৭৭ সালের দিকে তিনি সর্বপ্রথম চকরিয়া উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হন। পরে তিনি ১৯৯৭ সাল থেকে ২০০০ ইংরেজী পর্যন্ত অবিভক্ত চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ছিলেন। তিনি এক ছেলে ও ২ কন্যা সন্তানের জনক।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের দুঃসময়ের প্রবীণ রাজনীতিবিদ নুরুল কাদের বি কম এর সঠিক ও উন্নত চিকিৎসা সেবা প্রদান করা ক্ষমতাসীন দলীয় নেতাকর্মীদের একান্ত দায়িত্ব বলে মনে করছেন দলের তৃণমূল নেতাকর্মীরা। পাশাপাশি তাঁর সুচিকিৎসার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন আওয়ামীলীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মী এবং পরিবার সদস্যরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •