মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

বৃহস্পতিবার ৮ জুলাই কক্সবাজার জেলায় ২ টি প্রতিষ্ঠানে ২ ধরনের পদ্ধতিতে নমুনা টেস্ট করে মোট ১১৬ জনের দেহে করোনা শনাক্ত করা হয়েছে। তারমধ্যে, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ল্যাবে ৪২৭ জনের নমুনা টেস্ট করে ৯৯ জনের টেস্ট রিপোর্ট ‘পজেটিভ’ পাওয়া গেছে। বাকী ৩২৮ জনের নমুনা টেস্ট রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’ আসে।

এছাড়া, কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে একইদিন ৫৬ জনের র‍্যাপিড এন্টিজেন টেস্ট (Rapid Antigen Test-RAT) পদ্ধতিতে নমুনা টেস্ট করে ১৭ জনের টেস্ট রিপোর্ট ‘পজেটিভ’ শনাক্ত করা হয়। বাকী ৩৯ জনের টেস্ট রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’ আসে।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ট্রপিক্যাল মেডিসিন ও সংক্রামক ব্যাধি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শাহজাহান নাজির সিবিএন-কে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের (পিসিআর) ল্যাবে শনাক্ত হওয়া ৯৯ জন করোনা রোগীর মধ্যে ৭ জন আগে আক্রান্ত হওয়া রোগীর ফলোআপ টেস্ট রিপোর্ট। বাকী নতুন শনাক্ত হওয়া বাকী ৯২ জনের মধ্যে ১ জন বান্দরবান জেলার রোগী। অবশিষ্ট ৯১ সকলেই কক্সবাজারের রোগী।

তারমধ্যে, ৩২ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী। এছাড়া সদর উপজেলায় ১৬ জন, উখিয়া উপজেলায় ১৬ জন, রামু উপজেলায় ৪ জন, টেকনাফ উপজেলায় ২১ জন, চকরিয়া উপজেলায় ১ জন এবং কুতুবদিয়া উপজেলার ১ জন রোগী রয়েছে।

এদিকে, র‍্যাপিড এন্টিজেন টেস্ট পদ্ধতিতে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে করোনা শনাক্ত হওয়া ১৭ জনের মধ্যে ১৪ জন কক্সবাজার সদর উপজেলার, ১ জন উখিয়া উপজেলার রোগী, ১ জন রামু উপজেলার রোগী এবং ১ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী।

এনিয়ে, ৮ জুলাই পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা হলো-মোট ১৩ হাজার ৩২৫ জন। এরমধ্যে, গত ৭ জুলাই পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ১৩৪ জন। তারমধ্যে, ২০ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী। আক্রান্তের তুলনায় মৃত্যুর হার ১’১২% ভাগ।এরমধ্যে, লকডাউনের প্রথম ৭ দিনে অর্থাৎ ১ জুলাই থেকে ৭ জুলাই পর্যন্ত কক্সবাজারে করোনা আক্রান্ত হয়ে ৮ জনের প্রাণহানি হয়েছে। গত ৩০ জুন পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১২৬ জন। আর ৭ জুলাই পর্যন্ত এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে মোট ১৩৪ জনে। তারমধ্যে, শুধু কক্সবাজার সদর উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ৬৬ জন। এছাড়া, ৭ জুলাই পর্যন্ত করোনাতে উখিয়া উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ২৬ জন, চকরিয়া উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ১৪ জন, টেকনাফ উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ১৩ জন, রামু উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ৭ জন, পেকুয়া উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ৪ জন, মহেশখালী উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ২ জন এবং কুতুবদিয়া উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছে ২ জন।

একইসময়ে সুস্থ হয়েছেন ১১ হাজার ৪৫৭ জন করোনা রোগী। আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার হার ৮৬’৭৪% ভাগ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •