আলাউদ্দিন, লোহাগাড়া প্রতিনিধি :

করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় সারাদেশে গত ১ এপ্রিল থেকে সর্বাত্মক লকডাউন জারি করা হয়েছে।

গত সাত দিনেও উপজেলার কোথাও দেখা যায়নি সরকারি, বেসরকারি কিংবা রাজনৈতিক দলের কোন ত্রাণ তৎপরতা।

গতবছর লকডাউনে আওয়ামীলীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদেরই মাঠে বেশি সক্রিয় দেখা গেছে। সরকারি সহযোগিতাসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনীতিকরা অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিয়েছিলো।

এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকেও দেখা গেছিলো ত্রাণতৎপরতায়। পৌছে দিয়েছিল অসহায় কর্মহীন ঘরে ঘরে ত্রাণ। বিতরণ করেছিলো মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার সহ অন্যান্য করোনা সুরক্ষা সামগ্রী।

স্বজনরা যখন করোনায় আক্রান্ত লাশ ফেলে গেছে সেই লাশ দাফন করেছিলো “লোহাগাড়া মানবতার দল”সহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। কিন্তু এবার কারো তৎপরতা নেই। এমনকি মানুষকে সচেতন করতে নেই কোনো বেসরকারি উদ্যোগ।

জানতে চাইলে লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামীগের সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন হিরু বলেন, চলমান সর্বাত্মক লকডাউনে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিষ্টার বিপ্লব বড়ুয়া প্রায় ২/৩ হাজার পরিবার জন্য খাদ্যসামগ্রী পাঠাবেন বলে আমাকে নিশ্চিত করেছেন। সেগুলো কয়েকদিনের মধ্যে পৌঁছাতে পারে। ইতোমধ্যে লোহাগাড়াবাসীর জন্য করোনা সেবা নিশ্চিতে তিনি কিছু বুথ বসিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় মানুষের সেবাকে রাজনীতির প্রধানতম কাজ হিসেবে বিবেচনা করে। আশাকরি চট্টগ্রাম -১৫ আসনের সাংসদ ড.আবু রেজা মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন নদভী এমপি অতীতের মত এবারও এলাকায় ব্যাপক ত্রাণ তৎপরতা চালাবেন।

এছাড়াও কেন্দ্রীয় আ’লীগের উপ- প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনও আগের মতো এবারও ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

চট্টগ্রাম -১৫ আসনের সাংসদ ড.আবু রেজা মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন নদভী এমপি একান্ত সচিব এরফানুল করিম চৌধুরী বলেন এমপি মহোদয়ের পক্ষ লকডাউনের কয়েকদিন আগে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় পাঁচ হাজার পরিবার এর মাঝে ত্রাণ বিতরণ করছি।

চলমান লকডাউনেও সামনে বিতরণ কর হবে। এছাড়াও এমপি মহোদয় কিছু কিছু এলাকার অসহায় পরিবারের মাঝে বিকাশের মাধ্যমে টাকা পাঠাচ্ছেন বলে জানান তিনি।

সরকারি ত্রাণ সহায়তার ব্যপারে জানতে চাইলে লোহাগাড়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান হাবিব জিতু বলেন, সরকার বৈশ্বিক মহামারী করুণায় ভাইরাস মোকাবেলায় কর্মহীন অসহায় মানুষদের এখন নগদ টাকা দিচ্ছে।

ইতিমধ্যে সরকারিভাবে মোট ৩৮ লক্ষ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ এসেছে। যা ইতিমধ্যে উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন পরিষদে ৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা বরদ্দ দিয়েছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •