চট্টগ্রাম সংবাদদাতা:
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কোভিড-১৯ জনিত উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কঠোর লকডাউন চলাকালীন সময়ে চট্টগ্রাম মহানগর ছিন্নমুল সমবায় সমিরি ৩’শ সদস্যের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত উপহার সামগ্রী (ত্রাণ) বিতরণ করা হয়েছে।

আজ ৪ জুলাই ২০২১ ইংরেজি রোববার সকাল ১১টায় এম.এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।

প্রতি প্যাকেট উপহার সামগ্রীর মধ্যে ছিল-৭ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ২ কেজি আলু, ১ কেজি লবন, ১ লিটার সয়াবিন তেল ও ১টিঁ সাবান।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ মমিনুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ইউনিট কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর আহমদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এস.এম জাকারিয়ার এনডিসি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা, জেলা নাজির মোঃ জামাল উদ্দিন প্রমূখ। স্বেচ্ছাসেবক টিম যুব রেড ক্রিসেন্ট ও স্কাউটস দল ত্রাণ বিতরণ কাজে সহযোগিতা করেন।

ত্রাণ বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, বৈশ্বিক মহামারী কোভিডের কারণে শুধু বাংলাদেশ নয়, সারা পৃথিবী কঠিন সময় অতিক্রম করছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যখন মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হচ্ছে ঠিক তখনই দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এর পরেও প্রবৃদ্ধি কমেনি, উন্নয়ন থেমে থাকেনি।

গত বছরের চেয়ে এবার আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক প্রচেষ্টায় চট্টগ্রামসহ দেশের হাসপাতাল ব্যবস্থাপনার উন্নতি হয়েছে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল, জেনারেল হাসপাতাল ও অন্যান্য হাসপাতালগুলোতে কোভিড রোগীদের সেবার মান আগের চেয়ে আরও একধাপ এগিয়ে গেছে।

তিনি বলেন, করোনা প্রতিরোধে মন্ত্রী পরিষদ ঘোষিত কঠোর লকডাউন চলাকালীন সময়ে একেবারে কর্মহীন হয়ে পড়া বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকজনদেরকে ত্রাণের আওতায় আনা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় চট্টগ্রামসহ সারাদেশের জেলা প্রশাসন রাত-দিন পরিশ্রম করে সমাজের দুস্থ, হতদরিদ্র ও অস্বচ্ছল মানুষের হাতে সরকার প্রদত্ত ত্রাণ ও নগদ অর্থ সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন।

নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের মধ্যে যারা প্রকাশ্যে সাহায্য নিতে সংকোচবোধ করছে বা সাহায্য চেয়ে সরকারী ৩৩৩ নম্বরে ফোন ও আমাদের কাছে এসএমএস করছেন প্রত্যেক রাতে তাদের বাসা-বাড়িতে গিয়ে গিয়ে উপহার সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হচ্ছে।

তিনি চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানিয়ে যারা সরকারের সমালোচনা করে তাদেরকে এ সময়ে অস্বচ্ছল ও হতদরিদ্র মানুষের মাঝে ত্রাণ সহায়তায় এগিয়ে আসার আহবান জানান। পাশাপাশি করোনা মোকাবেলায় সচেতনতা, শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখা ও মাস্ক পরিধানসহ শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়েও গুরুত্বারোপ করেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিজানুর রহমান।

সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ মমিনুর রহমান বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে কঠোর লকডাউন চলাকালীন সময়ে সমাজের অস্বচ্ছল কেউ যাতে অভূক্ত না থাকে তা দেখার জন্য জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা আমাদের সকলের প্রিয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন।

সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সমাজের কর্মহীন মানুষের পাশাপাশি অসহায়, ছিন্নমুল, দুস্থ, হতদরিদ্র পরিবারকে নগদ অর্থ ও ত্রাণ সহায়তার আওতায় আনা হয়েছে। যতদিন লকডাউন থাকবে ততদিন অসহায়-অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হবে।

তিনি বলেন, ইতোপূর্বে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসরত ও অতিবর্ষণে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার, প্রতিবন্ধি, অসহায় দিনমজুর, নরসুন্দর, মুচি, চর্মকার, নির্মাণ শ্রমিক, ভ্যান চালক, হিজড়া জনগোষ্ঠীসহ পথে-প্রান্তরে অবস্থান করা মানুষদেরকে নগদ অর্থ ও ত্রাণ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। আমরা চাই এই পরিস্থিতিতে কেউ অনাহারে ও কষ্টে থাকবেনা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •