বান্দরবান প্রতিনিধি:
বান্দরবান পাবত্য জেলার দিন দিন করোনার সংক্রমণ বাড়ছেই। গত ২৪ ঘন্টায় নার্স স্বাস্থ্যকর্মীরসহ ২২ জন আক্রান্ত হয়েছে করোনায়। লামা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৩ জন নার্স এক জন স্বাস্থ্য কর্মী সহ ৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। সদর উপজেলার ১৫জন এবং রোয়াংছড়ি ও নাইক্ষংছড়ি ১জন করে

লামা উপজেলা ৩ জন নার্স এক জন স্বাস্থ্য কর্মী সহ ৫ জন আক্রাš হওয়ায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হচ্ছে।

সিভিল সার্জন সূত্রে জানা গেছে, পার্বত্য জেলা বান্দরবানে এ পর্যন্ত ১১৪৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে করোনায় আত্রুান্ত হয়ে মারা গেছে পাঁচ জন। বর্তমানে বিভিন্ন হাসপাতালে ৩১ জন করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি আছে।

সিভিল সার্জন ডাঃ অংসৈ প্রু মারমা জানিয়েছেন নমুনা পরীক্ষা বেড়ে যাওয়ায় আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে। অনেক জায়গায় লোকজন স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। ফলে আক্রান্ত বাড়ছে। স্থানীয়ভাবে করোনার পরীক্ষা করতে পিসিআর ল‍্যাব ও জিন এক্সপার্ট মেশিন চালু করার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে সিভিল সার্জন জানিয়েছেন । কঠোর লক-ডাউনের ৬ষ্ট দিনে বান্দরবানে সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি র‌্যাব সদস্যরা লক-ডাউন বাস্তবায়নে বিভিন্ন জায়গায় টহল দিচ্ছে। ভ্রাম্যমাণ আদালত বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করছে। তবে বিভিন্ন বাজার ও এলাকায় লকডাউন উপেক্ষা করে লোকজনের সমাগম ক্রমাগত বাড়ছে।

এদিকে রাঙামাটি মেডিকেল কলেজের ১৬ জন চিকিৎসককে বান্দরবানে বদলি করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা ও জনসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে এ নির্দেশনা জারি করা করেছে।

৫ জুলাই স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব সারমিন সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এই ১৬ চিকিৎসককে রাঙামাটি মেডিকেল কলেজ থেকে বান্দরবান সদর হাসপাতালে সংযুক্তিতে পদায়ন করা হয়।

বদলিকৃত কর্মকর্তাগণ হলেন, ডা. মো. আবদুল্লাহ আল মামুন, ডা. আবু মোহাম্মদ, ডা. মোহাম্মদ ফোরকান, ডা. ঋভুরাজ চক্রবর্তী, ডা. মোছা. কোহিনুর পারভীন, ডা. হাবিবুল ইসলাম চৌধুরী, ডা. আবু শহীদ মোহাম্মদ রেজাউল করিম, ডা. গৌরব দেওয়ান, ডা. মৌমিতা ত্রিপুরা মুমু, ডা. এস. এম. ইশতিয়াক আলী, ডা. নাবীল চৌধুরী, ডা. চৌধুরী ফারহানা, ডা. মিলটন বড়ুয়া, ডা. নাজনীন আক্তার, ডা. আশীষ কুমার তঞ্চঙ্গ্যা ও মো. আবু নাসের ফয়সাল রেজা।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •