আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি :
চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার জুঁইদন্ডী -খুরুস্কুল আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু সড়কটি স্থানীয় বাসিন্দাদের ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। দীর্ঘ এক যুগের বেশি সময় ধরে এ সড়কের উন্নয়ন কাজ না হওয়ায় সড়কটি বিলীন হয়ে গেছে। সম্প্রতি বৃষ্টির পানির তীব্র স্রোতে সড়কটি ভেসে গিয়ে কয়েক স্থানে খালে পরিণত হয়েছে। এতে বিপাকে পড়েছেন ওই এলাকার প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবারের মানুষ।
স্থানীয় সূত্র জানায়,উপজেলার জুঁইদন্ডী দর্জি পুকুর হতে খুরুস্কুল সেন্টার পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার সড়কটির উন্নয়ন কাজ হয় ২০০০ সালের দিকে। সেবার সড়কটির ৫০০ মিটার অংশে মাটি ভরাটের কাজ করে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা কারিতাস। ২০০৭-২০০৮ অর্থবছরে সড়কটির ওই অংশে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ইট বিছানো হয়। পরে সড়কটির নামকরণ করা হয় তৎকালীন স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রয়াত আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর নামে। ওই সময় সড়কটির মাটি ভরাটের কাজ করা হলেও দীর্ঘ এক যুগের বেশি সময় ধরে আর উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি।
এ সড়ক দিয়ে জুঁইদন্ডী,খুরুস্কুল,সরেঙ্গা গ্রামসহ আশপাশ এলাকার প্রায় ১০ হাজার মানুষ জেলা-উপজেলা সদর ও হাটবাজারে যাতায়াত করে থাকে। এছাড়া দক্ষিণ-পশ্চিম খুরুস্কুল গ্রামবাসীর যোগাযোগের একমাত্র ভরসা এই সড়ক। অবহেলিত এই এলাকার বাসিন্দারা কৃষি,ব্যবসা-বাণিজ্য,স্বাস্থ্যসেবার কাজসহ দৈনন্দিন কাজে যোগাযোগের জন্য সড়কটি ব্যবহার করে থাকেন। জনগুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি বেহাল অবস্থায় পড়ে আছে দীর্ঘ দিন। এখন অবধি সড়কটির কোনো ধরনের মেরামতের উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়,সড়কটির দর্জি পুকুর হতে গাজী শাহ্ জামে মসজিদ পর্যন্ত এলাকায় বিছানো ইট উঠে গিয়ে কাদায় পরিণত হয়েছে। ওই অংশের কয়েক স্থানে ভেঙে গেছে সড়ক। অপরদিকে গাজী শাহ্ জামে মসজিদ থেকে খুরুস্কুল সেন্টার পর্যন্ত রাস্তাটি বিলীন হয়ে সড়কের চিহ্ন পর্যন্ত নেই। বর্তমানে সড়কের ওই অংশের কয়েক স্থান পানিতে ডুবে খালে পরিণত হয়েছে। পানি মাড়িয়ে স্থানীয় লোকজন ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করতে দেখা গেছে। সাধারণ মানুষ যে কতটা কষ্টে আছে এদিক দিয়ে যাতায়াত না বুঝানো যাবে না।
স্থানীয় ইউনুস সিকদার বলেন,সড়কটি কাঁচা হওয়ায় সামান্য বৃষ্টি হলেই একেবারে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে। বৃষ্টির ফোঁটা পড়ার পরেই কাঁদা পানিতে একাকার হয়ে যায়। প্রচন্ড এ কাঁদায় চলতে গিয়ে অনেকেই পা পিছলে পড়ে গিয়ে গন্তব্যে যাবার আগেই বাড়িতে ফিরে আসতে বাধ্য হন। শিক্ষার্থীরা সময় মতো স্কুল-মাদ্রাসায় যেতে পারে না। স্থানীয় বাসিন্দাদের কাঁদা মাড়িয়ে হাটবাজারে যেতে হয়। গত কয়েক দিনের ভারি বর্ষণের কারণে পুরো সড়কটি কর্দমাক্ত ও পিচ্ছিল এবং কিছু জায়গায় বড় বড় গর্তে পরিণত হয়েছে। এ সড়ক দিয়ে অসুস্থ রোগীকে হাসপাতালে নিতে না পারায় বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা থাকে।
জুঁইদন্ডী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো.জসিম উদ্দিন বলেন,সড়কটির বেহাল অবস্থার কথা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে অবহিত করা হয়েছে। সড়কের বেশিরভাগ অবকাঠামো ভেঙে পড়েছে। তাই ইউপি চেয়ারম্যান কর্মসৃজন প্রকল্পের আওতায় মাটি ভরাটের কাজ করে দেওয়ার কথা দিয়েছেন। এর পরেই এলজিইডির মাধ্যমে সড়কটিতে ইট বিছানো হবে।
এ ব্যাপারে জুঁইদন্ডী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোরশেদুর রহমান চৌধুরী খোকা বলেন,বৃষ্টির কারণে আপাতত সড়কটির মাটি ভরাটের কাজ করা যাচ্ছে না। বর্ষা মৌসুম শেষ হলেই সড়কটি কর্মসূচির আওতায় এনে মাটি ভরাটের কাজ করা হবে।

ক্যাপশন-চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার জুঁইদন্ডী-খুরুস্কুল আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু সড়ক। সোমবারে তোলা ছবি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •