সিবিএন ডেস্ক
সর্বশেষ বিভাজন অনুযায়ীই এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-র‌্যাবে বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যদের পদায়নের অনুরোধ করেছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। গত ১৭ জুন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ থেকে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাজেদুর রহমান স্বাক্ষরিত একটি চিঠি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবর পাঠানো হয়েছে। ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে র‌্যাবে পদায়ন সংক্রান্ত কিছু তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী অবগত হয়ে র‌্যাবের সংগঠন অনুযায়ী পদায়নের বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করে সব সময় র‌্যাবের কাঠামো অনুযায়ী সশস্ত্র বাহিনী ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী হতে নির্দেশিত পদ অনুযায়ী সদ্য প্রেরণের নির্দেশনা দিয়েছেন।

গত ১৬ মে সদ্য পদোন্নতি পাওয়া ৪৮ জন এসপিকে উপ-পরিচালক পদে র‌্যাবে পদায়ন করা হয়। কিন্তু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ আদেশ অনুযায়ী র‌্যাবে উপ-পরিচালক পদ রয়েছে ১০৮টি। এরমধ্যে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর জন্য রয়েছে ৯৭টি পদ। আর পুলিশের জন্য রয়েছে ৯টি, ১টি আনসারের জন্য আর একটি পদ রয়েছে জনপ্রশাসন কর্মকর্তার জন্য। ফলে ৪৮ জন পুলিশ সুপার পদমর্যাদার কর্মকর্তাকে পদায়ন নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে। পদায়নের পর প্রায় দেড় মাস অতিক্রান্ত হলেও পদায়ন হওয়া পুলিশ সুপারদের কোনও ব্যাটালিয়ন বা শাখায় দায়িত্ব বণ্টন করা হয়নি।

রবিবার (২৭ জুন) সন্ধ্যায় যোগাযোগ করা হলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, পদায়ন নিয়ে জটিলতা ও এ সংক্রান্ত চিঠির কথা এই মুহূর্তে আমার জানা নেই। সোমবার অফিস টাইমে ফাইল দেখে এ বিষয়ে বিস্তারিত বলতে পারবো। র‌্যাব পুলিশেরই একটি বাহিনী। এখানে ভুল বোঝাবুঝির কোনও অবকাশ নেই। কয়েক দিনের মধ্যে সব ঠিক হয়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই দক্ষতার সঙ্গে বিশেষায়িত বাহিনী হিসেবে দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে চলছে র‌্যাব। র‌্যাবের নতুন নতুন ব্যাটালিয়নের প্রতিষ্ঠা ও পরিধি বৃদ্ধি পাওয়ায় বর্তমানে তার জনবল সংকট, বিশেষত অফিসার পদবির ঘাটতি নিয়ে অর্পিত দায়িত্ব পালন এ বাহিনীর জন্য একটি চ্যালেঞ্জ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী র‌্যাবকে কর্মক্ষম ও দক্ষ বাহিনী হিসেবে দায়িত্ব পালনের সক্ষমতা বজায় রাখার জন্য বর্তমানে ব্যাটালিয়নগুলোর বিভাজিত জনবল অনুযায়ী নির্দিষ্ট পদের অনুকূলে অফিসার ও অন্যদের শতভাগ পদায়নের বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করা হলো।

‘শুধু র‌্যাব ফোর্সেস সদর দফতরের জন্য’ শিরোনামের চিঠিতে বলা হয়েছে, র‌্যাবে প্রচলিত দায়িত্ব হস্তান্তর ও গ্রহণের ন্যূনতম সময়সীমা অনুযায়ী সশস্ত্র বাহিনী হতে বদলি গমন ও প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করা হলো। এছাড়াও, প্রতিস্থাপক ব্যতীত সশস্ত্র বাহিনীর কোনও সদস্যকে বাহিনীগুলোতে প্রত্যাবর্তন না করার জন্য প্রয়োজনীয় সমন্বয় সাধনের জন্য অনুরোধ করা হলো।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একজন কর্মকর্তা জানান, সদ্য পদোন্নতি পাওয়া ৪৮ জন পুলিশ সুপারকে র‌্যাবে পদায়ন নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছিল। কারণ, উপ-পরিচালক পদে পদায়নের জন্য পুলিশের জন্য বরাদ্দ ছিল ৯টি পদ। কিন্তু সামগ্রিক কোটা বিবেচনায় ৪৪ ভাগ পুলিশ সদস্য পদায়নের নিয়মানুসারে ৪৮ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে পদায়ন করা হয়েছিল। কিন্তু উপ-পরিচালক পদে পুলিশের জন্য মাত্র নয়টি পদ ছিল। এখন বাকি ৩৯ জন পুলিশ সুপারকে আবারও পুলিশের অন্যান্য ইউনিটে বদলি করতে হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •