মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

মিয়ানমার থেকে নাফ নদী সাঁতরে গত শনিবার ২৬ জুন টেকনাফ পৌরসভার জালিয়াপাড়া সংলগ্ন এলাকায় আসা বুনো হাতি ২ টিকে এখনো বনাঞ্চলে প্রবেশ করানো সম্ভব হয়নি। রবিবার ২৭ জুন বিকালে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ জেটি ঘাট সংলগ্ন নাফ নদের বালুর চরে হাতি দুটি দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন।

বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (দক্ষিণ) মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির জানান, শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত দীর্ঘ পাঁচ ঘণ্টা চেষ্টার পর বুনো হাতি দুটি টেকনাফের জালিয়াপাড়া প্যারাবন থেকে উদ্ধার করে বনাঞ্চলের অভ্যন্তরে পাঠিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন এলিফ্যান্ট রেসপন্স টিমের সদস্যরা। এ টিমে নেতৃত্ব দিয়েছেন দক্ষিণ বন বিভাগের টেকনাফ রেঞ্জ কর্মকর্তা সৈয়দ আশিক আহমেদ।

বর্তমানে হাতি দুটির অবস্থান শাহপরীর দ্বীপ বিজিবি ক্যাম্পের পূর্বে বালুর চরের কাছাকাছি রয়েছে জানা গেছে। শাহপরীর দ্বীপ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই জায়েদ হোসাইন বলেছেন, লোকজন সেখানে যাতে ভিড় করতে না পারেন, সেজন্য পুলিশ সেখানে উপস্থিত রয়েছে। এছাড়া বন বিভাগের কর্মকর্তারাও সেখানে রয়েছেন।

বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (দক্ষিণ) মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির আরো জানান, জোর করে হাতি ২ টিকে বনাঞ্চলে ঢুকানোর চেষ্টা করা হলে, হয়ত হাতি ২ টি আবার লোকালয়ের দিকে চলে আসতে পারে। এজন্য হাতি দুটিকে কৌশলে বনাঞ্চলের ভেতরে ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, খাদ্যের অভাবে মিয়ানমার থেকে নাফ নদী সাঁতরে হাতি ২ টি এপারে চলে এসেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •