লোহাগাড়া প্রতিনিধিঃ
লোহাগাড়ায় দায়িত্ব পালনকালে ট্রাফিক পুলিশের এক সার্জেন্টের উপর হামলা হয়েছে। এ ঘটনায় ট্রাক চালকসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।

মঙ্গলবার (২২ জুন) দুপুর ১২টা ৪০ মিনেটের সময় উপজেলা সদর বটতলি দরবেশহাট রোডে বটতলী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সামনেই এ হামলার ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনায় লোহাগাড়া ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট মাহমুদুল ইসলাম বাদী হয়ে ৩ জনকে আসামী করে লোহাগাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। লোহাগাড়া থানার মামলা নং-৪২।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, লোহাগাড়া সদর সওদাগর পাড়া এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে মো. আরিফ (২৮), বড়গুনা উত্তর তক্তাবুনিয়া ৪নং ওয়ার্ড হলদিয়া এলাকার সৈয়দ জাকির হোসেনের ছেলে গাড়ির চালক সৈয়দ মাজহারুল ইসলাম (২৬) ও লোহাগাড়ার আধুনগর কাজির পাড়া এলকার মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে মো. সরওয়ার কামাল রণি (২৬)।

এজেহার সুত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল থেকে লোহাগাড়া বটতলি মোটর স্টেশনে সরকারি দায়িত্ব পালন করছিলেন সার্জেন্ট মাহমুদুল ইসলাম। বেলা ১২টার পর চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের সংযোগ সড়ক দরবেশ হাট- আমিরাবাদ রোডে বটতলী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সামনে (ঢাকামেট্রো-ট ১৬-৭৮৮৪) ট্রাকটি প্রতিবদ্ধকতা সৃষ্টির মাধ্যমে যানজট সৃষ্টির করায় জনদুর্ভোগ তৈরি হয়। যানজটটি মহাসড়ক পর্যন্ত দীর্ঘ হওয়ায় যানজট নিরসনে ট্রাকটি সরাতে বললে গ্রেপ্তারকৃত আরিফ গাড়ি থেকে নেমে ধাক্কা দিয়ে পুলিশ সার্জেন্টের উপর হামলা চালায়। পুলিশ সার্জেন্ট বিষয়টি থানার অফিসার ইনচার্জকে জানালে ঘটনাস্থলে এসআই সামছুদ্দৌহা সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে আটককৃতরা আরো উত্তেজিত হয়ে গাড়ির প্রসিকিউশন প্রক্রিয়ায় জনসম্মূখে বাঁধা দিলে ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে গাড়িসহ আটক করে থানা হেফাজতে আসা হয়।

লোহাগাড়া ট্রাফিক বিভাগের সার্জেন্ট মাহমুদুল ইসলাম জানান, ‘জনদুর্ভোগ লাগবে সৃষ্ট যানজন নিরসন করতে গিয়ে সরকারি কাজে বাধা প্রদানপূর্বক আমার উপর চওড়া হয়ে হামলা করেন গ্রেপ্তারকৃতরা। পরে থানা পুলিশকে জানালে ঘটনাস্থল থেকে ৩ জনকে আটক করে থানা হেফাজতে নিয়ে যায়। সরকারি কাজে বাঁধা দিয়ে হামলা করায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছি।’

লোহাগাড়া থানার ওসি মো. জাকের হোসাইন মাহমুদ জানান, ‘সরকারি কাজে বাঁধা কোন মতে কাম্য নয়। আটক তিন জনের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে সকালে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •