এ কে এম ইকবাল ফারুক,চকরিয়া:
চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এডিসি (রাজস্ব) শাখায় কর্মরত উপ-সহকারী প্রকৌশলী সরওয়ার উদ্দিনের পিতা প্রবীণ শিক্ষক মাষ্টার কবির আহামদ (৮৭) আর নেই। ইন্নালিল্লাহি………রাজিউন।
বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে তিনি নিজ বাড়িতে মারা যান।
মৃত্যুকালে তার ৬ পুত্র সন্তান ছিল।
প্রবীণ শিক্ষক মাষ্টার কবির আহামদ বেশ কিছুদিন ধরে বাধ্যক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। মরহুম মাষ্টার কবির আহামদ তার কর্মময় জীবনে রামু ও চকরিয়া উপজেলার বিভিন্ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে দক্ষতার সাথে কর্তব্য পালনের পাশাপাশি চকরিয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ হারবাং ইউনিয়নের উত্তর হারবাং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে তিনি অবসর গ্রহন করেন।

শুক্রবার (১৮ জুন) বেলা ১১টায় বরইতলী উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন মাঠ ময়দানে মরহুম মাষ্টার কবির আহামদের নামাজে জানাযা শেষে তাকে স্থাণীয় সামাজিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী সম্পূর্ণ সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখেই মাষ্টার কবির আহামদের নামাজে জানাযা ও দাফন সম্পন্ন করা হয়। জানাযায় ইমামতি করেন বরইতলী কেন্দ্রিয় জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মৌলানা আব্দুল গফুর।

জানাযার পূর্বে মরহুম মাষ্টার কবির আহামদের কর্মময় জীবনের সৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন সাবেক এমপি ও কক্সবাজার জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এএইচ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ, মরহুমের রড় ছেলে ইঞ্জিনিয়র সরওয়ার উদ্দিন, হারবাং ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মোহাম্মদ বাবর ও উত্তর বরইতলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক মাষ্টার বেলাল উদ্দিন প্রমুখ। চকরিয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি আনসারুল ইসলাম প্রকাশ বাবুল মিয়া, বরইতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জালাল আহমদ সিকদার, বরইতলী গ্রিণ লাইট ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট সমাজ সেবক ছালেকুজ্জামানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ এবং শ্রেণী পেশার লোকজন জানাযায় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত: মরহুমের ৭ ছেলের মধ্যে বড় ছেলে ইঞ্জিনিয়র সরওয়ার উদ্দিন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এডিসি (রাজস্ব) শাখায় উপ-সহকারী প্রকৌশলী, মেজ ছেলে আনসার উদ্দিন বালাদেশ এ কে এইচ আবাসিক স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালক, তৃতীয় ছেলে সাইফুল ইসলাম বুলবুল হালিশহর ক্যান্টনম্যান্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের উপাধক্ষ্য, চতুর্থ ছেলে আরিফুল ইসলাম কক্সবাজার সিটি কলেজের সহকারী অধ্যাপক (গণিত), ৬ষ্ঠ ছেলে আবু নছর মোহাম্মদ হাসান রামু উপজেলায় সহকারী শিক্ষা অফিসার (এটিও) ও সপ্তম ছেলে আবু হোসেন মো. ফয়সাল চট্টগ্রাম নৌ-বাহিনী স্কুল এন্ড কলেজে সিনিয়র শিক্ষক (গণিত) হিসেবে শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত আছেন। মরহুমের ৫ম ছেলে আবু হানিফ মোহাম্মদ নোমান ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত অবস্থায় চকরিয়ায় এক মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •