অনলাইন ডেস্ক: ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ৬০ দিনের পুনর্বিন্যাস করা সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি বাস্তবায়নে প্রথম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার (১৫ জুন) মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ পাঠানোর অফিস আদেশ জারি করে।

এর আগে মঙ্গলবার (১৫ জুন) দুপুরে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানান শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা না গেলে এবং এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা না নেওয়া গেলে বিকল্প পদ্ধতিতে মূল্যায়ন করা হবে। অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে মূল্যায়নের ইঙ্গিত দেন শিক্ষামন্ত্রী।

উল্লেখ্য, গত ১২ জুন এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম শুরু করা হয়। ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ৬০ দিনের এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ৮৪ দিনের সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচির আলোকে অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম শুরু করা হয়।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) প্রকাশিত ও সোমবার (১৪ জুন) স্বাক্ষরিত ওই অফিস আদেশে জানানো হয়, অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শিখনফল মূল্যায়ন করা হবে। পুনর্বিন্যাস করা পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে কোন সপ্তাহে কী মূল্যায়ন করা হবে সে বিষয়টি বিবেচনায় রেখে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ প্রণয়ন করা হয়েছে। পুনর্বিন্যাস করা পাঠ্যসূচি প্রণয়ন করেছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। পাঠ্যসূচি অনুযায়ী বিষয়ভিত্তিক অ্যাসাইনমেন্ট মূল্যায়নে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

করোনার কারণে গত বছর ১৭ মার্চ থেকে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শ্রেণি কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। ফলে ২০২১ শিক্ষাবর্ষের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত পাঠ্যসূচি অনুযায়ী স্বাভাবিক শ্রেণি কার্যক্রমে অংশ নিতে পারেনি। তবে শিক্ষার্থীদের শিখন প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখতে সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে ধারাবাহিকভাবে শ্রেণি কার্যক্রম প্রচার করা হচ্ছে এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের উদ্যোগে অনলাইন ক্লাস পরিচালনা করছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় গত বছর থেকে ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

এই ধারাবাহিকতায় জাতীয় শিক্ষাক্রম পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার জন্য পাঠ্যসূচিকে পুনর্বিন্যাস করে। ওই পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের শিখন কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করা ও ধারাবাহিক মূল্যায়নের আওতায় আনার জন্য এনসিটিবি বিষয় ভিত্তিক মূল্যায়ন নির্দেশনাসহ অ্যাসাইনমেন্ট তৈরি করেছে।

অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের মাধ্যমে তাদের অর্জিত শিখনফল মূল্যায়ন করা হবে। পুনর্বিন্যাসকৃত পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে কোন সপ্তাহে শিক্ষার্থীর কী মূল্যায়ন করা হবে সে বিবেচনায় অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ প্রণয়ন করা হয়েছে। সোমবার (১৪ জুন) থেকে গ্রিড অনুযায়ী অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে প্রতি সপ্তাহের শুরুতে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের ওয়েবসাইটে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজগুলো প্রকাশ করা হবে। সপ্তাহ শেষে শিক্ষার্থীরা তাদের অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ শেষ করে সরাসরি বা অনলাইনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জমা দিয়ে নতুন অ্যাসাইনমেন্ট সংগ্রহ করবে।

মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের জারি করা নির্দেশনা মেনে অ্যাসাইনমেন্ট সম্পন্ন করে জমা দিতে হবে। শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে।

নির্দেশনা

শিক্ষার্থীর জমা দেওয়া অ্যাসাইনমেন্ট মূল্যায়ন করে নির্ধারিত ছক অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানে সংরক্ষণ করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নাম, ইআইআইএন ও ঠিকানা, শ্রেণি শাখা ও বিষয়, অ্যাসাইনমেন্টের নাম

এ কার্যক্রমে শিক্ষার্থী যেনও কোনও অনৈতিক চাপের মুখোমুখি না হয় তা লক্ষ্য রাখতে হবে। এক্ষেত্রে কোনও ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেলে দ্রুততার সঙ্গে তদন্ত করে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নিতে হবে। বিষয়ভিত্তিক শিক্ষকরা অ্যাসাইনমেন্ট মূল্যায়ন করে শিক্ষার্থীদের সবল ও দুর্বল দিক চিহ্নিত করবেন এবং দুর্বল অংশটুক উন্নয়নের পরামর্শ দেবেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •