বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ
বাঁশখালীর পুঁইছড়িতে সড়কের পাশে প্রভাবশালীদের অবৈধ বাঁধ তৈরীর ফলে সড়কের উপর ও আশেপাশে জলবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। আর কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে সেটা ভয়াবহ রুপ নেয়।

জানা যায়, গতকাল বাঁশখালী উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি লায়ন মো. আমিরুল হক এমরুল কায়েস পুইছড়ি সরলিয়া বাজার টু প্রেমবাজার সড়ক দিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন তার নজরে আসে এলাকার মানুষের করুণ দশার বিষয়টি। তিনি তাৎক্ষণিক ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিলে স্ট্যাটাসটি প্রচুর ভাইরাল হয়। স্ট্যাটাসটি বাঁশখালীর ইউএনও সাঈদুজ্জামান চৌধুরীর নজরে আসলে সরেজমিন পরিদর্শন করে কাঁদা পানি মাড়িয়ে অবৈধভাবে নির্মাণ করা বাঁধ কেটে রাস্তায় জমে থাকা পানি অপসারণ করেন।

রবিবার ( ৬ মে) বিকাল ৫টায় তিনি সরেজমিন পরিদর্শনে যান।

এসময় তিনি বাঁশখালী উপজেলা প্রকৌশলীকে সরেজমিন পরিদর্শন করে দ্রুত ড্রেন নির্মানের জন্য প্রাক্কলন প্রস্তুত করতে বলেন।

বাঁশখালী উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি লায়ন মো. আমিরুল এমরুল কায়েস বলেন, ‘আমার সামান্য স্ট্যাটাসটা এভাবে ভাইরাল হবে; সেটা কল্পনা করিনি। ইউএনও মহোদয় খুব এ্যাকটিভ। তিনি তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নিয়েছেন।’

এ বিষয়ে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সাঈদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ‘উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী মোহাম্মদ গালিব সাদলী মহোদয় প্রকল্প বাস্তবায়নে উপজেলা পরিষদ হতে অর্থ প্রদানের আশ্বাস দিয়েছেন। ভবিষ্যতে কেউ রাস্তার পাশে অবৈধভাবে বাঁধ নির্মাণ করে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •