সিবিএন ডেস্ক:
নতুন সরকার গঠনে চুক্তিতে পৌঁছেছে ইসরায়েলের বিরোধী দলগুলো। আর এর মধ্য দিয়ে অবসান হতে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর টানা ১২ বছরের যাত্রার। মধ্যপন্থী ইয়াস আতিদ পার্টির নেতা ইয়ার লাপিদ আট দলের জোট গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন। চুক্তির শর্তানুসারে নতুন সরকারে প্রথম প্রধানমন্ত্রী হবেন ডানপন্থী দল ইয়ামিনা পার্টির প্রধান নাফতালি বেন্নেত পরে লাপিদের কাছে এই দায়িত্ব হস্তান্তর করবেন তিনি। নতুন সরকার দায়িত্ব নেওয়ার আগে এখন বিরোধীদের পার্লামেন্টের আস্থা ভোটে জয়লাভ করতে হবে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

বিরোধীদের চুক্তি গঠনের ঘোষণা দিয়ে এক বিবৃতিতে ইয়ার লাপিদ জানান তিনি চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়টি প্রেসিডেন্ট রুয়েভেন রিভলিনকে অবগত করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি এই সরকার ইসরায়েলি নাগরিক সেবা করবে যারা এর পক্ষে ভোট দিয়েছে এবং যারা দেয়নি তাদেরও।’ তিনি আরও বলেন, ‘এই সরকার বিরোধীদের শ্রদ্ধা করবে এবং ইসরায়েলি সমাজের সব অংশের মধ্যে সংযোগ স্থাপন আর ঐক্যবদ্ধ করতে ক্ষমতার আওতায় নব কিছুই করবে।’

ইসরায়েলি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করা একটি ছবিতে দেখা গেছে ইয়ার লাপিদ, নাফতালি বেন্নেত এবং আরব ইসলামিস্ট রাম পার্টির নেতা মনসুর আব্বাস চুক্তিতে স্বাক্ষর করছেন। অনেক ইসরায়েলিই এই চুক্তিতে অসম্ভব বলে বিবেচনা করছিলেন। পরে মনসুর আব্বাস সাংবাদিকদের বলেন, সিদ্ধান্তটি কঠিন ছিলো আর বেশ কিছু বিরোধ ছিলো কিন্তু চুক্তিতে পৌঁছানো গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, এই চুক্তিতে থাকা অনেক কিছুই আরব সমাজের জন্য লাভজনক হবে।

প্রেসিডেন্টকে পাঠানো চিঠিতে ইয়ার লাপিদ বলেছেন নাফতালি বেন্নেতের পাশাপাশি তিনিও সরকারের প্রধান থাকবেন। ২০২৩ সালের ২৭ আগস্ট তারা প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব বদলে নেবেন। প্রেসিডেন্ট যত দ্রুত সম্ভব পার্লামেন্টে আস্থা ভোট আয়োজনের নির্দেশনা দিয়েছেন। ১২০ আসনের পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে নতুন জোট ব্যর্থ হলে ইসরায়েলে দুই বছরের মধ্যে পঞ্চমবারের মতো নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •