রকিয়ত উল্লাহ, মহেশখালী:
মহেশখালীর মাতারবাড়ি সাইরারডেইলের ৪৪ পরিবার এলাকায় কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ২৫মে রাত সাড়ে ১১টার ঘটনায় দেলোয়ার নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
৯৯৯ এ পুলিশ অভিযোগ পেয়ে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিয়ে ধর্ষণে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। সে স্থানীয় সেহের উল্লার ছেলে।
এ ঘটনায় ২ জনকে আসামি করে মহেশখালী থানায় একটি শিশু নির্যাতন ও ধর্ষণ মামলা রুজু হয়েছে।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই।
তিনি জানান, ৯৯৯ এ একটি ধর্ষণের অভিযোগে কল পেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিয়ে একজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এবিষয়ে থানায় শিশু ধর্ষণের মামলা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামিকে কারাগারে প্রেরণ করা হচ্ছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৫মে রাত সাড়ে ১১টার দিকে মাতারবাড়ির সাইরারডেইলের ৪৪পরিবারের এক কিশোরী রাতে পার্শ্ববর্তী খালার বাসা থেকে রান্না করা তরকারি আনতে যাওয়ার সময় স্থানীয় সেহের উল্লার পুত্র দেলোয়ার ও তার চাচতো ভাই শফি উল্লাহসহ আরও কয়েকজন বখাটে যুবক মুখ চেপে ধরে স্থানীয় সাইক্লোন শেল্টার এলাকায় নিয়ে যায়। তারা পালাক্রমে ধর্ষণ করে রাত আড়াইটার দিকে ফেলে চলে যায়। পরে স্থানীয়রা কিশোরীকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে বাপের বাড়ী নিয়ে যায়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ায় হয়। অবস্থার অবনতি হলে কক্সবাজার মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
ভিকটিমের পিতা বলেন, আমার মেয়েকে রাতের অন্ধকারে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •