সিবিএন ডেস্ক:
করোনার কারণে বন্ধের মাঝেও শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখতে দেশের পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের অনুমোদন নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সরাসরি (ইনপারসন) ও অনলাইন পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিতে পারবে। শুক্রবার (২৮ মে) ইউজিসির পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বৃহস্পতিবার (২৭ মে) এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিয়ে সব বিশ্ববিদ্যালয়কে এ সংক্রান্ত চিঠি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

ইউজিসির পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, ‘বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সঙ্গে নেওয়া গত বছর ২২ ডিসেম্বরের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তাদের কার্যক্রম গ্রহণ করতে পারবে। চিঠির সঙ্গে অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়া সংক্রান্ত স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদি রূপরেখা পাঠানো হয়েছে।’

চিঠিতে আরও বলা হয়, ‘দেশে বিরাজমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতি বিবেচনায় দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখার স্বার্থে ইউজিসির আগে পাঠানো সরাসরি (ইনপারসন) ও অনলাইন পদ্ধতিতে পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়ে প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের অনুমোদনক্রমে স্নাতক ও স্নতকোত্তর পর্যায়ের পরীক্ষা সরাসরি (ইনপারস) ও অনলাইন পদ্ধতিতে গ্রহণের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হলো।’

‘বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যাতে অনলাইনে পরীক্ষা নিতে পারে, সে জন্য স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি রূপরেখা তৈরি করতে গত ১ এপ্রিল ইউজিসি সদস্যের নেতৃত্বে ১০ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ওই কমিটি গত ৯ মে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে একটি প্রতিবেদন দাখিল করে। গত ২৩ মে সেই রূপরেখাটি অনুমোদন করে মন্ত্রণালয়। ওই রূপরেখাটি গত ২৪ মে দেশের সকল পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রয়োজনীয় কার্যার্থে পাঠানা হয়।’ ‘

তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণায় পরীক্ষা না নেওয়ার বিষয়ে ইউজিসি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নির্দেশনা দেয়। গত বুধবার (২৬ মে) শিক্ষামন্ত্রীর প্রেস ব্রিফিংয়ের পর বৃহস্পতিবার (২৭ মে) ইউজিসি বৈঠক করে বিদ্যামান পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে পরীক্ষা নেওয়ার অনুরোধ জানালো। এখন সকল বিশ্ববিদ্যালয় তাদের শিক্ষার্থীদের নির্ধারিত পদ্ধতি অনুসরণ করে অনলাইনে পরীক্ষা গ্রহণ করতে পারবে।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •