সিবিএন ডেস্ক
সন্তানসম্ভাবা স্ত্রীর পাশে থাকতে নিউজিল্যান্ড সফরে ছিলেন না সাকিব আল হাসান। শ্রীলঙ্কা সিরিজে সাকিব ফেরায় তাই স্বস্তি পাচ্ছেন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

কোচ-অধিনায়ক প্রায়ই বলেন, সাকিবকে ছাড়া তাদের কম্বিনেশন সাজানো বেশ কঠিন হয়ে যায়। কেননা সাকিব ব্যাটিং-বোলিং দুই বিভাগেই সমান কার্যকর। সাকিবের জায়গা পূরণ করার মতো বাংলাদেশ দলে তেমন কেউ না থাকায় ঘাটতি থেকেই যায়। সে জায়গা থেকে সাকিব ফেরাতে স্বস্তি পাচ্ছেন প্রধান কোচ।

শনিবার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ডমিঙ্গো বলেছেন, ‘অবশ্যই সাকিবের ফেরা স্বস্তির বিষয়। গত কয়েক বছর ধরে তাকে নিয়মিত পাওয়া যাচ্ছে না। এমন জায়গায় খেলা অনেক কঠিন। তাই তার মতো অভিজ্ঞ কাউকে পাওয়া বড় প্রাপ্তি। তাকে খেলতে দেখতে মুখিয়ে আছি।’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘মিরাজ এখন শীর্ষ পাঁচে আছে। সাদা বলে দারুণ করছে। রিয়াদও বোলিংয়ে ফিরছে, এটাও বড় পাওয়া। তরুণ মেহেদী নিউজিল্যান্ডে ভালো করেছে, সেও ভাবনায় আছে।’

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন পেসার দেখা যেতে পারে। আর সেটি সম্ভব হচ্ছে সাকিবের ফেরাতেই। ডমিঙ্গোর ব্যাখ্যা, ‘অবশ্যই তিন পেসারের সম্ভাবনা আছে। সাকিব দলে ফিরেছে, রিয়াদও (মাহমুদউল্লাহ) বোলিং করতে পারবে। মিরাজ আছে। যদিও এখনও আমরা একাদশ ঠিক করিনি।’

মিরপুরে সাধারণত কিছুটা স্লো উইকেট হয়। তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঘাসের উইকেট হতে যাচ্ছে। যেখানে ব্যাটসম্যানদের পাশাপাশি বোলারদের সহায়তা থাকবে। ডমিঙ্গো তাই মনে করেন, ‘যেকোনও ওয়ানডে ম্যাচের উইকেট ভালো হওয়া উচিত। ভালো উইকেট প্রত্যাশা করছি।’

বিশ্বকাপ থেকে ফেরার পর অনেক দিন চোটে ভুগেছিলেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। এরপর ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলেছিলেন। উইকেট পেলেও বাজে বলও করেছেন তিনি। পাশাপাশি ব্যাটিংয়ে করেছেন হতাশ। তবে দ্রুতই ছন্দে ফিরবেন বলে মনে করেন ডমিঙ্গো, ‘সাইফউদ্দিন সম্প্রতি চোটে অনেক ভুগেছে। সে দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। শহিদুল ব্যাকআপ খেলোয়াড় হিসেবে আছে। সাইফউদ্দিনের সঙ্গে তার ভালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে পারে। সাইফউদ্দিন বোলিং অলরাউন্ডার, বোলিংয়েও বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।’

এদিকে মেহেদী হাসান মিরাজ, আফিফ হোসেন ও শেখ মেহেদী হাসানের মতো তিনজন স্পিনিং অলরাউন্ডার থাকার পরও মোসাদ্দেক কেন স্কোয়াডে? এ নিয়ে গত কিছুদিন দিয়ে সমালোচনা হচ্ছে। মোসাদ্দেককে দলে নেওয়ার ব্যাখ্যায় ডমিঙ্গো বলেছেন, ‘আমরা সাত নম্বরের জন্য এমন কাউকে চাচ্ছিলাম যে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি স্পিন পারবে। আফিফ, মোসাদ্দেক এই ভাবনা থেকেই। সৌম্য পেস বোলিং পারে, সে টপ অর্ডারেও আসতে পারে। মোসাদ্দেক লোয়ার মিডল অর্ডারে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। সে এমন কেউ যে ম্যাচ শেষ করে আসতে পারবে, ভালো ফিল্ডার, বোলিং-ব্যাটিং পারে, ভালো প্যাকেজ।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •