সিবিএন ডেস্ক:
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৮ জন। যা কিনা তার আগের দিনের চেয়ে বেশি। গতকাল ২৬ জনের মৃত্যুর তথ্য জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর। তবে মৃত্যু বাড়লেও গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ২৮ জন, যা কিনা গতকালের চেয়ে কম। গতকাল এক হাজার ৫০৪ জন নতুন করে শনাক্ত হওয়ার কথা জানায় স্বাস্থ্য অধিদফতর।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৭৫৯ জন, সুস্থতার সংখ্যাও গতকালের চেয়ে কম। গতকাল এক হাজার ৫২৯ জনের সুস্থতার কথা জানায় সরকারি এই দফতর।

শনিবার (২২ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৩৮ জনকে নিয়ে করোনাতে এখন পর্যন্ত সরকারি হিসেবে মারা গেছেন ১২ হাজার ৩৪৮ জন। নতুন শনাক্ত হওয়া এক হাজার ২৮ জনকে নিয়ে এখন পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন সাত লাখ ৮৭ হাজার ৭২৬ জন। আর সুস্থ হওয়া ৭৫৯ জনকে নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন সাত লাখ ২৯ হাজার ৭৯৮ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী শনাক্তের হার আট দশমিক ৪১ শতাংশ, আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৫৭ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯২ দশমিক ৬৫ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৫৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ১১ হাজার ৯২০টি, আর নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১২ হাজার ২৩০টি। দেশে এখন পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৮ লাখ পাঁচ হাজার ৪০৭টি। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ৪২ লাখ ৪৭ হাজার ২৫০টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ১৫ লাখ ৫৮ হাজার ১৫৭টি।

দেশে বর্তমানে ৪৮২টি পরীক্ষাগারে করোনার নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, এর মধ্যে আরটি-পিসিআরের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হচ্ছে ১২৯টি পরীক্ষাগারে, জিন এক্সপার্ট মেশিনের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হচ্ছে ৩৯টি পরীক্ষাগারে এবং র‌্যাপিড অ্যান্টিজেনের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হচ্ছে ৩১৪টি পরীক্ষগারে।

মারা যাওয়া ৩৮ জনের মধ্যে পুরুষ ২৫ জন, আর নারী ১৩ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত পুরুষ মারা গেলেন আট হাজার ৯২৮ জন এবং নারী মারা গেলেন তিন হাজার ৪২০ জন।

মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে বয়স বিবেচনায় ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন ১৬ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আছেন ১৩ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে দুই জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে তিন জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে দুই জন এবং ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে রয়েছেন দুই জন।

মারা যাওয়া ৩৮ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ১৬ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের সাত জন, রাজশাহী, খুলনা ও সিলেট বিভাগের আছেন চার জন করে, বরিশাল বিভাগের আছেন একজন এবং রংপুর বিভাগের আছেন দুই জন।

৩৮ জনের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ৩২ জন এবং বেসরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ছয় জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হওয়া ৭৫৯ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ১৬৯ জন, চট্টগ্রাম বিভাগর ৩৩১ জন, রংপুর বিভাগের ২০ জন, খুলনা বিভাগের ৬৯ জন, বরিশাল বিভাগের ২৬ জন, রাজশাহী বিভাগের ৯৭ জন, সিলেট বিভাগের ৪৩ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের আছেন চার জন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •