সংবাদদাতা:

পোকখালীর পশ্চিম গোমাতলীতে বসতভিটা দখলের চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। ৯৯৯-এ ফোন দিলে পুলিশ উপস্থিত হলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। পুলিশ চলে আসার পর জমির প্রকৃত মালিকের উপর চড়াও হয় দখল চেষ্টাকারীরা। সংঘটিত ঘটনায় কক্সবাজারের ঈদগাঁও থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। অভিযোগকারী হচ্ছেন পোকখালী ইউনিয়নের পশ্চিম গোমাতলীর মোজাফফর আহমদের স্ত্রী আমিনা আক্তার। এতে একই এলাকার দুইজনকে বিবাদী করা হয়েছে। বিবাদীরা হচ্ছে মৃত এমদাদুল হকের পুত্র এজাহার মিয়া এবং এজাহার মিয়ার স্ত্রী কাজল।

বাদী তার অভিযোগে উল্লেখ করেন যে, তার বসতভিটার জায়গাটি তার স্বামীর পৈত্রিক ভোগদখলীয় জমি। স্বামীর নামে জায়গাটির বিএস খতিয়ান প্রচারিত আছে। কিন্তু বর্তমানে জমির মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় বিবাদীরা উক্ত জমি জবর দখলের অপচেষ্টা করছে। জ্মিটিতে তাদের পাকা বাড়ি রয়েছে। গত ১৮ মে মৃত এমদাদ হোসেন এর পুত্র এজাহার মিয়া এবং এজাহার মিয়ার স্ত্রী কাজলের। নেতৃত্বে অভিযুক্তরা উক্ত জমি দখল করতে তার বসতঘরের দক্ষিণ পাশের লোহার জানালা ভাঙ্গা শুরু করে। এমতাবস্থায় তিনি ৯৯৯ এ কল দিয়ে ঈদগাঁও পুলিশের এস আই রেজাউল করিম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

পুলিশ চলে আসলে অভিযুক্তরা বাদিকে মারধরের জন্য উদ্যত হলে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাকে রক্ষা করেন। এসময় বিবাদীরা অভিযোগকারী ও তাঁর পরিবারবর্গকে আবারো জমিটি দখল করার হুমকি দেয়। বাদীর পক্ষ থেকে বাধা দিলে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষসহ অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। তাই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তিনি আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন।

যোগাযোগ করলে এসআই রেজাউল করিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তিনি গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন এবং আদালতের শরণাপন্ন হওয়ার পরামর্শ দেন।

স্থানীয় ইউপি আলাউদ্দীন জানান, ঘটনার বিষয়ে এবং থানায় অভিযোগ দেয়ার ব্যাপারটি শুনেছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •