মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

সুপ্রিম কোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী, প্রবীন রাজনীতিবিদ, সাবেক গভর্নর এডভোকেট জহিরুল ইসলামের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী মঙ্গলবার ১৮ মে। ২০২০ সালের এদিনে বর্ষীয়ান এ রাজনীতিবিদ চট্টগ্রামের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৮১ বছর বয়সে ইন্তেকাল করেন। বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের অধিকারী এডভোকেট জহিরুল ইসলাম গণপরিষদের সদস্য, কক্সবাজার মহকুমার গর্ভনর, কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সফল সাধারণ সম্পাদক, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এবং গণফোরাম প্রতিষ্ঠাকালীন প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্বাহী সদস্য ছিলেন। কক্সবাজার বায়তুশ
শরফ কমপ্লেক্স পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্বও দীর্ঘদিন পালন করছেন সফলতার সাতে তিনি।মুক্তিযুদ্ধের বিশিষ্ট সংগঠক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর, সুপ্রিম কোর্টের স্বনামধন্য আইনজীবী আইনজীবী ছিলেন এডভোকেট জহিরুল ইসলাম।

২০২০ সালের ১৮ মে মাগরিবের নামাজের পর চট্টগ্রাম নাসিরাবাদ হাউজিং সোসাইটির জামে মসজিদ মাঠে মরহুম এডভোকেট জহিরুল ইসলামের প্রথম নামাজে জানাজা এবং পরদিন ১৯ মে কক্সবাজার বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্স মাঠে জুহুরের নামাজের পর দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।কক্সবাজারে জানাজার আগে জেলা পুলিশের একটি চৌকস দল মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এডভোকেট জহিরুল ইসলামের কফিনকে লাল সবুজের পতাকায় ঢেকে দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। নামাজে জানাজা শেষে মরহুম এডভোকেট জহিরুল ইসলাম এর বাসভবনের একটু দক্ষিণ পূর্বে বইল্ল্যা পাড়া কবরস্থানে তাকে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়। কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ সড়কের বাসিন্দা এডভোকেট জহিরুল ইসলামের আদিনিবাস পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নে। মরহুম আলহাজ্ব আশরাফ মিয়া ও মরহুমা খুইল্ল্যা বিবির পুত্র এডভোকেট জহিরুল ইসলাম। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ফরিদা বেগম, ৩ পুত্র যথাক্রমে বিশিষ্ট ব্যাংকার জাহেদুল ইসলাম, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ রাশেদুল ইসলাম, তরুন ব্যবসায়ী জাবেদুল ইসলাম এবং , ৩ কন্যা যথাক্রমে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী শাহানা ইসলাম, সাবিনা ইসলাম ও শাবানা ইসলাম সহ অনেক আত্মীয় স্বজন, গুণগ্রাহী, অনুসারী ও শুভাকাঙ্ক্ষী রেখে যান তিনি।

কক্সবাজারের রাজনৈতিক অঙ্গনের এই বটবৃক্ষের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী করোনা পরিস্থিতিজনিত লকডাউন (Lockdown) এর কারণে আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করা হচ্ছেনা বলে সিবিএন-কে জানিয়েছেন-মরহুমের জ্যেষ্ঠ সন্তান বিশিষ্ট ব্যাংকার জাহেদুল ইসলাম। তবে আনুষ্ঠানিকতার অর্থ দিয়ে করোনায় সংকটে পড়া অসহায়, গরীব, দুঃস্থ মানুষকে সহায়তা, বায়তুশ শরফ এতিমখানায় খাবার বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এছাড়া মরহুমের বাসভবনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে পারিবারিকভাবে খতমে কোরআন, দোয়া মাহফিল এবং কবর জেয়ারতের আয়োজন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মরহুমের দ্বিতীয় পুত্র রাজনীতিবিদ রাশেদুল ইসলাম।
তার গর্বিত পিতা এ অঞ্চলের রাজনীতি ও আইনঙ্গনের অতি পরিচিত মুখ মরহুম এডভোকেট জহিরুল ইসলাম’কে আল্লাতায়লা যাতে জান্নাতুল ফেরদৌসের বাসিন্দা করে নেন, সেজন্য সবার কাছে দোয়া কামনা করেছেন মরহুমের কনিষ্ঠ পুত্র জাবেদুল ইসলাম।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •