সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ
সারাদেশে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় দ্বিতীয় ধাপে সরকার ঘোষিত লকডাউনকে সামনে রেখে কক্সবাজার জেলার ঐতিহ্যবাহী সামাজিক সংগঠন ‘বৃহত্তর পাঁহাশিয়াখালী সমাজ কল্যাণ পরিষদ’এর পক্ষে ৩নং ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে ৫০টি অসহায় পরিবারের মাঝে রাতের অন্ধকারে ঈদ সামগ্রী পৌঁছে দেন সভাপতি একরামুল হক মজনু, সেক্রেটারি শাকিল মুহাম্মদ, কোষাধ্যক্ষ হুমায়ুন কবির হিমু, সদস্য মোহাম্মদ হোসাইন ও উপদেষ্টা এইচ এম মহি উদ্দীন মহিম।

ঈদের আগের রাতে অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী পৌঁছে দেয়ায় অসহায় মানুষ খুশি হয়ে এই যুবকদের জন্য অনেকে কান্না জড়িত কন্ঠে অনেকে দোয়া করেছেন।
এবং এতে তারা সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাপক প্রশংসিতও হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে এসব ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণকালে সভাপতি একরামুল হক মজনু বলেন, বৈশ্বিক করোনা মহামারীর কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে গিয়ে দিনমজুর,খেটে খাওয়া মানুষ,ড্রাইভার ও মধ্যবিত্তরা দিনাতিপাত করতে হিমশিম খাচ্ছেন, এই দুর্দিনে অসহায় মানুষের পাশে থাকার জন্য আমাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে, থাকবে ইনশাআল্লাহ।

সংগঠনের সেক্রেটারি শাকিল মুহাম্মদ বলেন, করোনার এই দুঃসময়ে সরকার জনগণের কাছে যে প্রণোদনা দিয়ে যাচ্ছেন, এটাকে আরো বেগবান করার জন্য আমরা সবসময় সাধারণ মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করছি।

কোষাধ্যক্ষ হুমায়ুন কবির হিমুর ব্যবস্থাপনায় করোনা মহামারীর শুরু থেকে এ পর্যন্ত ৫ম বারের মতো দরিদ্র ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন বৃহত্তর পাঁহাশিয়াখালী সমাজ কল্যাণ পরিষদ।

সংগঠনের উপদেষ্টা এইচ এম মহি উদ্দীন মহিমের দিকনির্দেশনায় নিজেদের সাধ্য মতো এই সামাজিক সংগঠন গরীব ও নিন্মবিত্ত পরিবারের পাশে থাকার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন।

উপদেষ্টা এইচ এম মহি উদ্দীন মহিম বলেন,আমরা অসহায় মানুষের পাশে সারাজীবন আছি থাকবো ইনশাআল্লাহ।
এই সংগঠন সারাবছর বিভিন্ন সমাজ উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত।
এসব সমাজ উন্নয়ন মূলক কাজকে আরো তরান্বিত করার জন্য তিনি এলাকার প্রভাবশালী ও ধনাঢ্যবান মানুষের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •