বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ

মোহাম্মদ মধু (৪০)। মধু ফকির নামে চেনে সবাই। মসজিদ ও মন্দিরের দানবাক্স চুরি করাই হচ্ছে তার পেশা। বিভিন্ন স্থানে গিয়ে মসজিদ ও মন্দিরে ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়ায়। সুযোগ বুঝে দানবাক্স নিয়ে দৌড় মারে।

বুধবার (৫ মে) দিবাগত রাত ২টার সময় এমন ঘটনা ঘটেছে বাঁশখালীর নাপোড়া গ্রামের দিলু মার্কেট এলাকায়। মসজিদ ও মন্দিরের দানবক্স চুরি করে পালানোর সময় মধু ফকির জনতার হাতে ধরা পড়ে।

জানা যায়, পুইছড়ি ইউনিয়নের নাপোড়া কালিবাড়ি রোডের দিলু মার্কেট এলাকায় মধু ফকিরের হাতে দুটি দানবাক্স দেখে সন্দেহ জাগে স্থানীয়দের। পরে বিভিন্ন জেরার মুখোমুখি হয় ওই চোর। তার হাতে জঙ্গল নাপোড়া গ্রামের ভিলেজার পাড়া জামে মসজিদ ও শ্রী শ্রী লোকনাথ বাবার মন্দিরের দানবাক্স সহ নগদ টাকা পাওয়া গেছে।

মধু ফকির পেকুয়া উপজেলার টৈটং ইউনিয়নের হাজী বাজার এলাকার মোহাম্মদ লেদুর পুত্র। মধু বেশিরভাগই থাকেন কুতুবদিয়া উপজেলার কুতুব শরীফ দরবারে। ধৃত মধু ফকির দীর্ঘদিন ধরে পেকুয়া, চকরিয়া, কুতুবদিয়া, বাঁশখালী, লোহাগাড়াসহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকার গ্রাম-গঞ্জের মসজিদ, মন্দির, মাজার, এতিমখানাসহ বিভিন্ন দাতব্য প্রতিষ্ঠানের দানবক্স চুরির সাথে জড়িত বলে জানা যায়।

তার এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মধু ফকির বিভিন্ন স্থানে চুরি করে ও মদ সেবন করে মাতলামি করা অবস্থায় গণপিটুনি খেয়েছে।

পুঁইছড়ি ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার শেয়ার আলী বলেন, ‘ঘটনাটি শুনেছি। তাকে এলাকার ইয়ং বয়সী ছেলেরা দানবাক্স সহ আটক করে হালকা মারধর করে। পরে মুছলেকা দিয়ে ছেড়ে দেয়।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •